NAVIGATION MENU

আত্মহত্যার কথা ভেবেছিলেন ব্রিটিশ রাজবধূ মেগান


ব্রিটিশ রাজ পরিবারের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক ব্রিটেনের রাজবধূ মেগান মর্কেল। । সেই সঙ্গে কাঠগড়ায় তুললেন মিডিয়াকেও। জানিয়েও দিলেন, এক সময় তিনি এমন পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছিলেন, আত্মহত্যার কথাও মাথায় এসেছিল।

কেবল মেগানই নন, রাজপুত্র হ্যারিও বাবার সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের অবনতি নিয়ে মুখ খুলেছেন। বিখ্যাত টিভি সাংবাদিক ওফ্রা উইনফ্রে’কে দেওয়া ঐতিহাসিক সাক্ষাৎকারে কার্যত তোলপাড় ব্রিটেন।

গত বছরই রাজকীয় দায়িত্ব-কর্তব্য থেকে সরে দাঁড়িয়ে সাধারণ জীবন কাটানোর ইচ্ছের কথা প্রকাশ করেছিলেন ৩৯-এর মেগান ও ৩৬-এর হ্যারি। এবার খোলামেলা ভাবেই তাঁদের মনের কথা জানিয়েছেন তাঁরা।

সাক্ষাৎকারে মেগানের চাঞ্চল্যকর অভিযোগ, রাজ পরিবার তাঁদের সন্তানের গায়ের রং নিয়ে চিন্তিত ছিল। এব্যাপারে হ্যারির সঙ্গেও আলোচনা করেছিলেন তাঁর পরিবারের সদস্যরা। আসলে মেগানের বাবা শ্বেতাঙ্গ হলেও মা ছিলেন কৃষ্ণাঙ্গ। সেই কারণেই রাজ পরিবারের উদ্বেগ ছিল, মেগানের সন্তান হয়তো পুরোপুরি ফরসা নাও হতে পারে।

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডের নেগেটিভ কভারেজ নিয়েও মুখ খুলেছেন মেগান। অভিমান উগরে দিয়ে তিনি জানিয়েছেন, পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছে গিয়েছিল, তিনি আর বেঁচে থাকতে চাইছিলেন না! উইনফ্রে তাঁর কাছে জানতে চেয়েছিলেন, প্রথমবার অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় এই চাপ তাঁকে নিতে হয়েছিল কিনা।

মেগান সেকথায় স্পষ্ট জানিয়েছেন, ব্যাপারটা একেবারেই তাই ছিল। তাঁর কথায়, ”আমি রাজ পরিবারের সঙ্গেও বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছিলাম। পরিবারের অন্যতম বর্ষীয়ান একজনকে বলেছিলাম মিডিয়াকে জানিয়ে দিতে যে আমি মানসিক চাপে পড়ে যাচ্ছি। কিন্তু উনি বলেন, সেটা ভাল দেখাবে না।”

এমনই নানা বিষয়ে মুখ খুলতে দেখা যায় মেগানকে। পাশাপাশি হ্যারিও জানান, তাঁর দাদার স্ত্রীকে মেগান কাঁদিয়েছেন এমন মিথ্যে অভিযোগও তুলেছিল মিডিয়ায়। আর সেই সময়ও তাঁর বাবা যুবরাজ চার্লসের ব্যবহার তাঁকে হতাশ করেছিল।

তবে হ্যারি এও জানিয়েছেন, তাঁর বাবা ও দাদা আসলে রাজ পরিবারের সদস্য হিসেবে ফাঁদে পড়ে রয়েছেন। তবে কেবল ক্ষোভের কথাই নয়, তাঁদের দ্বিতীয় সন্তানকে নিয়েও মুখ খোলেন মেগান-হ্যারি।

তাঁরা জানিয়েছেন, তাঁদের দ্বিতীয় সন্তান গ্রীষ্মেই পৃথিবীর আলো দেখবে। এবং তাঁদের দাবি, লিঙ্গ পরীক্ষা করিয়ে তাঁরা জানতে পেরেছেন এবার কন্যাসন্তানই আসছে তাঁদের কোলে।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন, কলকাতা

এস এস