NAVIGATION MENU

আসছে সৌদি আরবের ৫০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ


জনশক্তি ও কর্মসংস্থান, দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়ন, বিনিয়োগ ও শিল্প, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিখাতসহ ধর্ম বিষয়ক খাতে সৌদি আরবের বিশাল বিনিয়োগ আসছে।

এসব খাতে ৫০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের সম্ভাবনা রয়েছে।

বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ-সৌদি আরব যৌথ কমিশনের (জেসি) ১৩তম সভা শেষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ কথা জানান।

ইআরডি সচিব মনোয়ার আহমেদ বাংলাদেশের পক্ষে বিভিন্ন মন্ত্রকের প্রতিনিধি এবং কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত একটি দলের নেতৃত্বে ছিলেন এবং সৌদি উপমন্ত্রী মাহির আবদুল রহমান গাসিম কেএসএ থেকে ৪০ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী এএইচএম মোস্তফা কামাল বলেছেন,‘কেএসএর সাথে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক গত অর্ধ শতাব্দীতে বন্ধুত্বের মধ্যে স্থানান্তরিত হয়েছে।’

‘আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং কেএসএ কিংডমের যোগ্য নেতৃত্বে এটি আগের চেয়ে ভাল হয়েছে,’ তিনি জানিয়েছেন, ‘টেকসই উন্নয়নের দিকে কার্যকর অংশীদারিত্ব অব্যাহত রাখতে বাংলাদেশ এখন বন্ধুত্বের স্তর ছাড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে,

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ তার দ্বিপাক্ষিক বন্ধুবান্ধব ও উন্নয়ন অংশীদারদের কাছ থেকে সমর্থন বাড়িয়ে প্রত্যাশা করছে এবং অব্যাহত রেখেছে।’

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, উন্নয়নের সন্ধানে যখন দেশটি বেশ ভালোভাবে এগিয়ে চলছে তখন বাংলাদেশ সর্বোত্তম সময়ে এই জাসিকে হোস্টিং করছে।

একই সাথে, এ বছর (২০২০), গোটা জাতি জাতির পিতা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘১০০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে প্রশংসিত বাঙালীর জন্মশতবর্ষ উদযাপন করছে।

তবে, দেশের বিভিন্ন অর্থনৈতিক খাতেও বড় বিনিয়োগের প্রত্যাশা রয়েছে বলে তিনি জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, “বাংলাদেশ সক্ষমতা বৃদ্ধি ও টেকসইকরণ, কর্মসংস্থান, বৃদ্ধি এবং দারিদ্র্য হ্রাসে অবদান রাখতে বৈদেশিক প্রত্যক্ষ বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নিশ্চিত সহায়তার প্রত্যাশায় রয়েছে এসডিজির জন্য বর্ধিত তহবিল বিধানের সাথে উন্নয়ন অংশীদারের দেশের কৌশলসমূহের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ পরিপ্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০৪১, অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা এবং অন্যান্য জাতীয় পরিকল্পনা ও নীতিমালায় বাংলাদেশের কৌশল ও নীতিমালা কল্পনা করা হয়েছে। ”

১৩ তম জিসি অধিবেশনে বিভিন্ন এজেন্ডা এবং দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার ক্ষেত্র অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

বৈঠকের এজেন্ডাগুলি ছিল জনশক্তি এবং কর্মসংস্থান, অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়ন, বিনিয়োগ ও শিল্প, বিদ্যুৎ ও শক্তি, ধর্মীয় বিষয়, পর্যটন তথ্য, যোগাযোগ প্রযুক্তি, কৃষি ও মৎস্য, স্বাস্থ্যসেবা এবং শিক্ষা এবং বিভিন্ন বিবিধ বিষয়।

তবে বিডি এবং কেএসএর মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের পরে দেশগুলির মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল।

গত বছর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সৌদি সফরে সৌদি বাদশাহ এ বিশাল বিনিয়োগ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।

সেই পারস্পরিক চুক্তির ভিত্তিতে একটি যৌথ কমিশন (জেসি) প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। জেসি ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ও কেএসএতে বিকল্পভাবে ১২ অধিবেশন বসেছে। সর্বশেষ (১২ তম) জেসি ১৪-১৫ মার্চ ২০১৮ তে কেএসএ রিয়াদে অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

ওআ  / এস এস