NAVIGATION MENU

আসামের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈর মৃত্যু


আসামের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী প্রবীণ কংগ্রেস নেতা তরুণ গগৈ মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৮৫ বছর।

সোমবার (২৩ নভেম্বর) বিকেলে গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

চিকিৎসকদের সূত্রে জানা যায়, গত আগস্ট মাসের শেষের দিকে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ার পর সেরে উঠলেও পরবর্তী উপসর্গজনিত কারণে প্রবীণ কংগ্রেস বিধায়কের মৃত্যু হয়েছে।

এরপর গত ২ নভেম্বর হাসপাতালে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে ভর্তি করানো হয়েছিল গগৈকে। তার শরীরের একাধিক অঙ্গ বিকল হওয়ার কারণে, তাকে রাখা হয় ভেন্টিলেশনে।

আসামের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা সংবাদমাধ্যমকে গতকাল জানিয়েছেন, ‘করোনা পরবর্তী উপসর্গ নিয়ে তরুণ গগৈকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল ৷ তবে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি ঘটেনি। প্রথম থেকেই তাকে রাখা হয়েছে ইনটেনসিভ ভেন্টিলেশনে ৷’

গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নয় জনের চিকিৎসক টিম তার চিকিৎসার দায়িত্বে ছিলেন। বিকেল ৫টা ৩৪ মিনিটে তার মৃত্যু হয়৷

সাবেক মুখ্যমন্ত্রীর মরদেহ প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় তার সরকারি বাসভবনে।

আসাম রাজ্য কংগ্রেসের প্রধান রিপুন বোরা জানিয়েছেন, তরুণ গগৈয়ের স্ত্রী ডলিদেবী ও ছেলে গৌরব অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়ালের কাছে অনুরোধ করেছিলেন যাতে জনসাধারণের জন্য একদিন মরদেহ রাখার ব্যবস্থা করা হয়। পরিবারের সেই ইচ্ছেকে স্বীকৃতি দিয়ে রাজ্য সরকার একদিন মরদেহ রাখার ব্যবস্থা করেছেন। গুয়াহাটির শ্রীমন্ত শংকরদেবা কলাক্ষেত্র চত্বরে মঙ্গলবার সন্ধে থেকে ২৫ নভেম্বর সারাদিন মরদেহ রাখা হবে। যাতে সাধারণ মানুষ প্রবীণ এই রাজনীতিককে শেষশ্রদ্ধা জানাতে পারেন।

২৬ নভেম্বর তার অন্তিমযাত্রার সূচনা হবে কলাক্ষেত্র থেকে। নিজের শহর টিটাবরের পরিবর্ত গুয়াহাটিতেই তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। তরুণ গগৈয়ের শেষ ইচ্ছেকে সম্মান জানিয়ে শেষকৃত্য সম্পন্ন হওয়ার আগে তার মরদহে ঘোরানো হবে মন্দির মসজিদ গির্জায়।

আসামের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় মুখ্যমন্ত্রীত্বের আছে রেকর্ড গগৈয়ের। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ১৫ বছর জনতা ভবনে বসেছেন তরুণ গগৈ।

ওয়াই এ/এডিবি