NAVIGATION MENU

ওসি পরিচয়ে প্রতারণা, অতপর পাকড়াও


ওসি পরিচয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে এক প্রতারককে গ্রেফতার করেছে কালীগঞ্জ থানা পুলিশ। তার কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নেওয়া ৩ লাখ টাকা ও মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতের নাম মো. ওসমান ওরফে জাহিদুল ইসলাম ওরফে সহিদ (৩৩)। সে ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ থানার রামনগর গ্রামের মো. রুশমত আলীর ছেলে।

গত বেশ কিছুদিন ধরে ওসমান নিজেকে কালীগঞ্জ, শ্রীপুর, টঙ্গী, কোনাবাড়ি ও পূবাইলসহ গাজীপুরের বিভিন্ন থানাসহ নরসিংদীর পলাশ থানার ওসি বা ওসি (তদন্ত) হিসেবে মিথ্যা পরিচয় দিয়ে ও ওইসব কর্মকর্তাদের নাম ব্যবহার করে স্থানীয় ব্যবসায়ী, ধনাঢ্য ব্যক্তি ও রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের মোবাইলে ফোন করতো।

সে মামলার ভয় দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। সম্প্রতি সে কালীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) সহিদুল ইসলামের নাম ভাঙ্গিয়ে স্থানীয় পোল্ট্রি ব্যবসায়ী মোয়াজ্জেম হোসেনের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে ১৯ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।

পরবর্তীতে প্রতারণার বিষয়টি ধরা পড়লে মোয়াজ্জেম হোসেন বৃহস্পতিবার বিকেলে ওসমানের বিরুদ্ধে কালীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় পুলিশ আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে রাত দেড়টার দিকে জিএমপির পূবাইল থানার মীরের বাজারের (মাজু খান) রেলক্রসিং এলাকা হতে ওসমানকে গ্রেফতার করে।

পরে ওসমানের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার স্ত্রী শিরিন আক্তারের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নেওয়া ৩ লাখ টাকাসহ প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ৩টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার গ্রেফতারকৃত ওসমানকে আদালতে প্রেরণ করা হয়।

এস এস