NAVIGATION MENU

কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও অঞ্চলের উদ্ভাবনীমূলক প্রযুক্তি উন্নয়নে হংকং ও শেনচেনের ভূমিকা


শিয়ে নান আকাশ

চিনের শেনচেন বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার ৪০তম বার্ষিকী-সম্পর্কিত এক অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের ভাষণ হংকং সমাজে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। 

“প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের ভাষণের আলোকে হংকং ও চিনের মূলভূখণ্ডের উদ্ভাবনীমূলক প্রযুক্তিগত সহযোগিতা জোরদার ফোরাম” গত ২১ অক্টোবর হংকংয়ে অনুষ্ঠিত করা হয়।

অংশগ্রহণকারীরা জানান, উদ্ভাবনীমূলক প্রযুক্তি খাতে, হংকং ও শেনচেনের সমন্বয় করতে পারে, দুটি শহর হাতে হাত রেখে একসাথে কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও উপসাগরীয় অঞ্চলের জন্য ভূমিকা রাখতে পারে।

হংকং বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চলের উদ্ভাবন ব্যুরোর প্রধান জনাব সুই ইং হেং জানান, প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও উপসাগরীয় অঞ্চলের ভবিষ্যত উন্নয়নে দিক নিদের্শনা দিয়েছে। উদ্ভাবনীমূলক প্রযুক্তি খাতে, কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও উপসাগরীয় অঞ্চল প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়ায় শেনচেনের পাশাপাশি দেশের উন্নয়নের ধারায় যোগ দেয়া উচিত হংকংয়ের।

তিনি বলেন, “প্রেসিডেন্ট সি’র গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ আমাদেরকে অনেক অনুপ্রাণিত করেছে এবং আমাদের কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও মহা-উপসাগরীয় অঞ্চলের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা দিয়েছে। হংকং ও ম্যাকাও পরস্পরকে সুবিধা দিয়েছে। হংকংয়ের ভবিষ্যতকে দেশের উন্নয়নের বড় ধারায় যুক্ত করা উচিত। ভবিষ্যতে কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও মহা-উপসাগরীয় অঞ্চলে দুটি চালিকাশক্তি থাকবে। শেনচেন ও হংকং একসাথে উন্নত হবে।  ভবিষ্যতে আমরা অবশ্যই শেনচেন শহরের সাথে কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও মহা-উপসাগরীয় অঞ্চলের কাজ সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে নেবো।”

হংকংয়ের প্রযুক্তিগত ভিত্তি অনেক মজবুত। হংকংয়ের প্রযুক্তি আন্তর্জাতিক সমাজ স্বীকৃত। হংকং প্রযুক্তিগত পার্ক কোম্পানির প্রধান নির্বাহী হুয়াং কে ছিয়াং বলেন, কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও মহা-উপসাগরীয় অঞ্চলের সুবিধার আলোকে হংকং ও শেনচেনের উদ্ভাবনীমূলক প্রযুক্তিগত সহযোগিতা জোরদার দারুণ গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, “কীভাবে প্রযুক্তি দিয়ে কল্যাণ অর্জন করা যায়- তা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এ ২/৩ বছরে, হংকং বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চলের সরকার উদ্ভাবনীমূলক প্রযুক্তিতে শতাধিক বিলিয়ন ইউয়ান বরাদ্দ দিয়েছে। কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও মহা-উপসাগরীয় অঞ্চলের স্থান সমন্বয় করে সুবিধা কাজে লাগানো আমাদের কাজ।”

এ ফোরামে অংশগ্রহণকারী সাং থাং প্রযুক্তি হংকং কোম্পানির জেনারেল ম্যানেজার সাং হাই লোং মনে করেন, হংকং ও শেনচেন দু’টি শহরের নিজস্ব সুবিধা রয়েছে। দু’পক্ষ একসাথে সমন্বয় ও সহযোগিতা করে একে অপরের সুবিধা কাজে লাগায়।

তিনি বলেন,“‘হংকংয়ে গবেষণা, কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও মহা-উপসাগরীয় অঞ্চলে উৎপাদন, দেশব্যাপী বিক্রি, এমনকি বিশ্বব্যাপী প্রমোট’- এ ধারণা ভবিষ্যতে আরো সুষ্ঠুভাবে কাজে লাগানো যাবে।”

তরুণ বৈজ্ঞানিক প্রতিনিধি লুই আই লান জানান, প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের বক্তব্য তাদেরকে অনেক উত্সাহিত করেছে। তারা আশা করেন, কুয়াংতোং-হংকং-ম্যাকাও মহা-উপসাগরীয় অঞ্চল প্রতিষ্ঠার সুযোগ ধরে প্রযুক্তিগত গবেষণার শুরু থেকে উত্পাদন প্রক্রিয়া আরো দ্রুত করা যাবে। তিনি বলেন, “আমার ধারণা, বিশেষ করে আমাদের তরুণ বিজ্ঞানীদের জন্য এটি একটি দারুণ সুযোগ। আমি একটি উদাহরণ দেই, আসলে হংকংয়ের প্রযুক্তিগত গবেষণা খুবই উচ্চ মানের। কিন্তু আমাদের শিল্প শেনচেনের মত দ্রুত না। তাই সহযোগিতার মাধ্যমে আমাদের উদ্ভাবনের শুরু থেকে উত্পাদনের প্রক্রিয়া আরো দ্রুত করা যাবে। এ জন্য এটি অসাধারণ সুযোগ।”

শিয়ে নান আকাশ চায়না মিডিয়া গ্রুপের একজন কর্মী