NAVIGATION MENU

চলন্ত গাড়িতে তরুণীকে গণধর্ষণ, আটক ৬


ঢাকার অদূরে সাভারে  চলন্ত মিনিবাসে এক তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে ছয়জনকে আটক করেছে পুলিশ। এ কাণ্ড শুক্রবার রাতে সাভারের সিঅ্যান্ডবি বাইপাস সড়কের আশুলিয়ার গরুরহাট এলাকায়। রাতেই ছয়জনকে তাদের আটক করা হয়।

এ ঘটনায় শনিবার ভুক্তভোগী ওই তরুণী আশুলিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আটক করা হয়- ঢাকার তুরাগ থানার গুলবাগ ইন্দ্রপুর ভাসমান গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে আরিয়ান (১৮), কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানার তারাগুনা এলাকার মৃত আতিয়ারের ছেলে সাজু (২০), বগুড়া জেলার ধুনট থানার খাটিয়ামারি এলাকার সুলতান মিয়ার ছেলে সুমন (২৪), একই এলাকার তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে সোহাগ (২৫), বগুড়ার ধুপচাচিয়া থানার জিয়ানগর গ্রামের সামছুলের ছেলে সাইফুল ইসলাম (৪০) ও নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর থানার ধামঘর এলাকার জহুর উদ্দিনের ছেলে মনোয়ার (২৪) ।

তারা সবাই তুরাগ থানার কামারপারা ভাসমান এলাকায় ভাড়া থেকে আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল-নবীনগর মহাসড়কে মিনিবাস চালাত। আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম জানান, ভুক্তভোগী তরুণী তার বোনের বাড়ি মানিকগঞ্জ থেকে একটি বাসে করে নিজের বাড়ি নারায়ণগঞ্জে যাচ্ছিলেন।

পথে সব যাত্রীকে আগেই নামিয়ে দেন বাসের চালক ও তার সহযোগী। এ সময় ওই তরুণীকে বাসে করে নবীনগর নিয়ে যান। সেখানে তাকে দলবেঁধে ধর্ষণ করে বাসের চালক, তার সহযোগীসহ ছয়জন। এসময় ওই তরুণীর আত্মচিৎকারে ওই স্থানে দায়িত্বে থাকা টহল পুলিশ বাসটিকে থামায়। এরপর পুলিশ ওই বাসের ভেতর থেকে ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করে এবং তার অভিযোগের ভিত্তিতে ছয়জনকে আটক করে। বাসটিও জব্দ করা হয়েছে।

তরুণীর দায়ের করা মামলায় আটকদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হবে। ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে।ভুক্তভোগী ওই তরুণীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।

এস এস