ন্যাভিগেশন মেনু

টিকা তৈরির সক্ষমতা বাংলাদেশকে সাড়ে ৩ বিলিয়ন ডলারের ঋণ অনুমোদন এডিবির

ডেঙ্গু ভাইরাস টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ, চারটি ধরনের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরিতে সাফল্য


বাংলাদেশে টিকা তৈরির সক্ষমতা বাড়াতে বাংলাদেশের জন্য সাড়ে ৩ বিলিয়ন ডলারের ঋণ অনুমোদন দিয়েছে এডিবি। এলডিসি উত্তরণের পরবর্তী পর্যায়ে আগামী ২০২৬ সালের পর বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক বাজার দর অনুযায়ীই কিনতে হবে টিকা।

বুধবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে মন্ত্রীর দপ্তরে,পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের ও সংস্থাটির কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিন্টিং সঙ্গে  বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আগামীতে আরও নানা ধরনের ভাইরাস আসতে পারে।  করোনা ও ডেঙ্গু সহ নানা ধরনের রোগের টিকা তৈরি করা হবে। সেজন্য এখন থেকে প্রস্তুতি দরকার। সরকার সেজন্য একটি প্রকল্প নিয়েছে। সেখানে এডিবি ৩৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার ঋণ দেবে। এর মধ্যে অর্ধেক স্বল্প সুদে এবং অর্ধেক বাজার দরের কাছাকাছি সুদ থাকবে।

বাংলাদেশের ভ্যাকসিন তৈরির সক্ষমতা বাড়াতে দ্রুত প্রকল্প অনুমোদন চায় এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। বর্তমানে প্রকল্প প্রস্তাব তৈরির প্রক্রিয়া চলছে। আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটি অনুমোদন না হলে স্বল্প সুদের ঋণ পাওয়ার বিষয়টি অনিশ্চত হবে।

এম এ মান্নান আরও বলেন, এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেছেন, গত অর্থবছর বাংলাদেশে তার সবচেয়ে ভালো সময় কেটেছে। কাজের পরিবেশ, অর্থছাড়, প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং ঋণ অনুমোদন সব ক্ষেত্রেই ভালো সময় পার করেছে ।

মন্ত্রী বলেন,এডিবি অনুরোধ প্রকল্পটি যাতে দ্রুত অনুমোদন করিয়ে দেওয়া হয় । আমার পক্ষ থেকে চেষ্টার কোনো কমতি থাকবে না। এটি ভালো উদ্যোগ। এডিবি আমাদের ভালো বন্ধু। যত দ্রুত অনুমোদন করা যায় সেই প্রচেষ্টা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য যে, ডেঙ্গু প্রবণ বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আইসিডিডিআর,বি ও যুক্তরাষ্ট্রের ভার্মন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইউভিএম) লার্নার কলেজ অব মেডিসিনের গবেষকরা একটি উৎসাহব্যঞ্জক টেট্রাভ্যালেন্ট ডেঙ্গু টিকা অর্থাৎ ডেঙ্গু ভাইরাসের চারটি ধরনের বিরুদ্ধেই উপযোগী টিকা নিয়ে গবেষণা সম্পন্ন করেছেন।

গবেষণায় ব্যবহৃত এক ডোজের ডেঙ্গু টিকা টিভি-০০৫ মূল্যায়ন করে দেখা যায়, এটি শিশু-প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রয়োগের জন্য নিরাপদ ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে সক্ষম। গবেষণার ফলাফল সম্প্রতি দ্য ল্যানসেট ইনফেকশাস ডিজিজেস জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

ডেঙ্গু ভাইরাসের চারটি ধরন—ডেন-১, ডেন-২, ডেন-৩ ও ডেন-৪।  টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে দেখা গেছে, চারটি ধরনের বিরুদ্ধেই এই টিকা  অ্যান্টিবডি তৈরিতে সাফল্য দেখিয়েছে।  টিকারএই সফল পরীক্ষা নিয়ে একটি প্রতিবেদন আন্তর্জাতিক সাময়িকী 'ল্যানসেটে' গত সপ্তাহে প্রকাশিত হয়েছে। এই টিকার নাম দেওয়া হয়েছে টিভি-০০৫ (টেট্রাভেলেন্ট)।