NAVIGATION MENU

থানায় বাংকার বসিয়ে পুলিশের পাহাড়া


নিরাপত্তাজনিত কারণে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ১৪টি থানায় বাংকার স্থাপন করে মেশিনগান দিয়ে ২৪ ঘণ্টার পাহাড়া বসিয়েছে পুলিশ।

রাজধানী ঢাকার  গুরুত্বপূর্ণ দু’টি বিভাগের প্রতিটি থানায় বসানো হয়েছে লাইট মেশিনগান (এলএমজি) ও চাইনিজ রাইফেল সম্বলিত চৌকি। এরআগে সিলেট, নারায়ণগঞ্জ ও ব্রাহ্মাণবাড়িয়ায় এমন পাহাড়া বসে পুলিশ।

মতিঝিল বিভাগের মতিঝিল, সবুজবাগ, খিলগাঁও, পল্টন মডেল, রামপুরা, মুগদা ও শাজাহানপুর থানায় বালুর বস্তা দিয়ে নিরাপত্তা চৌকি তৈরি করা হয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে থানার বাড়তি নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে।

বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ সদস্যদের দিয়ে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে।পুরান ঢাকার বেশ কয়েকটিও থানারও নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। মূলত মাদ্রাসা অধ্যুষিত এলাকা এবং তুলনামূলক জরাজীর্ণ থানায়গুলোর নিরাপত্তা বেশি দেওয়া হচ্ছে।

ডিএমপির ওয়ারি বিভাগের ওয়ারি থানা, ডেমরা থানা, শ্যামপুর থানা, যাত্রাবাড়ী থানা, গেন্ডারিয়া থানা ও কদমতলি থানায় এ নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার রয়েছে।

গত ২৮ মার্চ হেফাজতের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা বন্‌ধে দেশের বিভিন্ন এলাকায় তাণ্ডব চালায় বনধ সমর্থনকারীরা। বিশেষ করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নারায়ণগঞ্জ, ফরিদপুর ও ঢাকায় হামলা-ভাঙচুর চালায়।

আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয় থানা, ভূমি অফিস, সড়কে থাকা গাড়ি ও বসতবাড়ী। এরপরই পুলিশ সদর দফতর থেকে দেশের সবগুলো থানার নিরাপত্তা বৃদ্ধির নির্দেশ দেওয়া হয়। গত বৃহস্পতিবার  থানার আশেপাশে সবসময় একাধিক দলের টহল ও ঢাকার সব থানার নিরাপত্তা বৃদ্ধির নির্দেশনা দেন ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম।

এস এস