NAVIGATION MENU

ধর্ষণ বিচার দাবিতে মঙ্গলবারও উত্তাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চিত্রাঙ্কনে ছাত্রলীগ


অতীতের ধর্ষণ কাণ্ডগুলোর প্রতিবাদকে হার মানিয়ে শীর্ষে উঠে এসেছে রবিবার সন্ধ্যায় খোদ ঢাকা শহরের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীর ধর্ষণ   ঘটনাটি।   

তাঁর এ ধর্ষণ নিয়ে সোমবারের মতো মঙ্গলবার সকাল থেকে উত্তাল হয়ে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। সোমবার রাতেও এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সরব ছিলেন  আন্দোলনকারীরা।

ছাত্রী ধর্ষণের প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবারও (৭ জানুয়ারি)  প্রতিবাদে শামিল হয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। আজ রোকেয়া হলের সামনের সড়কে প্রতিবাদী চিত্রাঙ্কন করছেন শিক্ষার্থীরা।

ছাত্রলীগের নেতৃত্বে চলছে এই চিত্রাঙ্কন। তারা অভিযুক্ত ধর্ষণকারীকে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে স্লোগান দিচ্ছেন। ছাত্রী ধর্ষণের প্রতিবাদ জানাতে রাজু ভাস্কর্যের সামনে রোববার রাত থেকেই চার শিক্ষার্থীর অনশন চলছে।

আজ সকাল থেকে মুখে কালো কাপড় বেঁধে শত শত শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে মৌন মিছিল করেছেন। প্রতিবাদী এসব শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের মূর্তিগুলোর চোখেও কালো কাপড় বেঁধে দেন।বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন নেতৃবৃন্দ বলছেন, দোষীদের গ্রেফতার ও কড়া শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। সোমবার সন্ধ্যার পর ক্যাম্পাসে মশাল মিছিল, রাজু ভাস্কর্যে প্রতিবাদী গান-কবিতায় সমাবেশ এবং মোমবাতি মিছিল নিয়ে শহীদ মিনারে অবস্থান নেন। 

শিক্ষার্থী ধর্ষণের প্রতিবাদে সন্ধ্যার পর ক্যাম্পাসে মশাল মিছিল করে প্রগতিশীল ছাত্র জোট। এ সময় তারা ধর্ষণকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়ে স্লোগান দেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) থেকে ছাত্র জোটের নেতাকর্মীরা মশাল মিছিল বের করে শামসুন্নাহার হলের সামনে প্রদক্ষিণ করে ভিসি চত্বরসহ ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে।

মশাল মিছিলে ঢাবি ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অনিক রায় ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি আল কাদেরী জয়কে নেতৃত্বে দেখা যায়। অন্যদিকে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে প্রতিবাদী গানে কবিতায় সমাবেশের আয়োজন করেন 'পালাবদল' নামে ২০১৩/১৪ সেশনের ঢাবি শিক্ষার্থীরা। সেখানে একে একে বিপ্লবী ও প্রতিবাদী গান, কবিতা আবৃত্তি করেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।‘

 সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানীর নেতৃত্বে মোমবাতি জ্বালিয়ে নিপীড়নবিরোধী পদযাত্রা ও আলোক প্রজ্বলন মিছিল ডাকসু চত্বর থেকে বেরিয়ে শহীদ মিনারে অবস্থান নিতে দেখা যায়।ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, এজিএস সাদ্দাম হোসাইনের নেতৃত্বে ডাকসুর নেতাসহ সাধারণ শিক্ষার্থীরা শহীদ মিনারে মোমবাতি প্রজ্বলন করেন।

গোলাম রাব্বানী বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। সেরকম বাংলাদেশেও আইন সংস্কার করে বিধান প্রণয়ন দরকার।সাদ্দাম হোসাইন বলেন, ‘এ ঘটনার বিচার না হওয়া পর্যন্ত ডাকসুর নিপীড়নবিরোধী মঞ্চ পিছু হাঁটবে না। বিচারের দাবিতে আমরা আজ রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে স্মারকলিপি পেশ করব।

রবিবার (৫ জানুয়ারি) কুর্মিটোলা এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয় বাস থেকে নামার পর ধর্ষণের শিকার হন ঢাবি শিক্ষার্থী। তিনি বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক্ষণিকা’ নামের দোতলা বাসে (ঢাবি-টঙ্গী রুট) বাড়ি ফিরছিলেন। সন্ধ্যায় কুর্মিটোলায় বাস থেকে নেমে যাওয়ার পর তাকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়।

ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রী বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা ক্যান্টনমেন্ট থানায় বাদী হয়ে মামলা করেছেন।  

এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ দিনভর নানা কর্মসূচি রয়েছে।

এস এস