ন্যাভিগেশন মেনু

পটুয়াখালীতে কৃষকের জালে ধরা পড়লো রাসেলস ভাইপার সাপ


পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় এক কৃষকের জালে ধরা পড়েছে একটি রাসেলস ভাইপার সাপ। এটির দৈর্ঘ্য ৫ ফুট। সোমবার ২৪ জুন বেলা এগারোটায় উপজেলার ধুলাসার ইউনিয়নের বৌলতলী গ্রামের নুর হাওলাদার রাড়ির পুকুরে পাতা জালে সাপটি আটকে যায়। পরে ওই কৃষক সাপটি লাঠি দিয়ে আঘাত করে আহত অবস্থায় প্লাস্টিকের বড় কৌটায় জীবিত সংরক্ষণ করেন। এসময় সাপটিকে এক নজর দেখতে ভীড় জমায় ওই এলাকার উৎসুক জনতা। তবে সাপটি উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছে এনিমেল লাভারস অফ পটুয়াখালীর কলাপাড়া টিমের সদস্যরা।

কৃষক নুর হাওলাদার জানান, সাপটি আমাদের জালে আটকা পড়ার বিষয়টি আমার স্ত্রী প্রথমে দেখে। পরে আমাকে জানালে আমি এটি উদ্ধার চেষ্টা করি। এ সময় আমার স্ত্রীর কথায় সাপটির উপর লাঠি দিয়ে বেশ কয়েকটি আঘাত করি। তবে এটি এখনো জীবিত অবস্থায় আছে। এটি আমি একটি প্লাস্টিকের কৌটায় সংরক্ষণ করেছি। তবে বন বিভাগ বা কেউ সুস্থ করে এটিকে বনে অবমুক্ত করে দিতে পারলে তাকে দিয়ে দিবো।

সাপটি দেখতে আশা নয়াকাটা গ্রামের শাহিন চৌকিদার জানান, এই প্রথমবারের মতো রাসেলস ভাইপার সাপ দেখলাম। এর আগে ইউটিউব এবং ফেসবুকে ব্যাপক এই সাপের ছবি দেখেছি। এটি একটি বিষাক্ত সাপ। 

তারিকাটা গ্রামের ইউসুফ ভূইয়া জানান, আমি রাসেলস ভাইপার সাপ ধরা পড়েছে শুনে এখানে দেখতে আসলাম। সাপটি দেখতে সুন্দর হলেও এটি তীব্র বিষধর সাপ। আমার মতো এখানে শত শত মানুষ সাপটিকে এক নজর দেখতে এসেছে।তবে সাপটিকে মারা ঠিক হয়নি। এটা অনেকটা আহত, বাচানো যায় কিনা সন্দেহ রয়েছে। সাপটিকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বনে অবমুক্তের অনুরোধ জানাচ্ছি। 

এনিমেল লাভারস অফ পটুয়াখালীর কলাপাড়া টিমের সদস্য বায়জিদ মুন্সী জানান, আমাদের একটি টিম ঘটনাস্থল যাচ্ছে। সাপটি উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বন বিভাগকে হস্তান্তর করবো।

তিনি আরও জানান, সবাইকে সাপ দেখে আতঙ্কিত না হয়ে আমাদের খবর দেয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।  সর্পদংশনের শিকার হলে নিকটস্থ সরকারী হাসপাতালে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো৷  এছাড়া সাপ ধরার রেস্কিউ টিমের সদস্যদের খবর দিলেও হবে। সাপ আসলে আমাদের জীব বৈচিত্র্যের জন্য অনেক উপকারী বন্ধু। যা খাদ্য শৃঙ্খলে  গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।