ন্যাভিগেশন মেনু

পরীমনিকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে পাশে আছেন নচিকেতা


মাদকের মামলায় প্রায় এক মাস কারাগারে ছিলেন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। গত ১ সেপ্টেম্বর সকালে জামিনে কারামুক্ত হয়ে বাসায় ফিরেন তিনি। কারামুক্তির পর পরীমনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দুই বাংলার জনপ্রিয় শিল্পী নচিকেতা চক্রবর্তীর ‘এত সাহস কার’ গানটি শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেন-নিজের উপর বিশ্বাস রাখুন।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের কাছ থেকে বিষয়টি শোনার পর নচিকেতা বলেছেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে পরীমনিকে আমার ভালো লাগে। ভীষণ সাহসী। যেটা বলা উচিত সেটা সবার সামনে বলার ক্ষমতা রাখেন। তার দেশের পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন। যা খুব সহজ নয়। যা করছেন বেশ করছেন।

ঢাকা বোট ক্লাব বিতর্কের পর মাদক মামলায় ২৭ দিনের কারাবাসে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত পরীমনি। তবুও তিনি লড়ছেন। তার সেই লড়াইয়ের নেপথ্য শক্তি, দাদু শামসুল হক গাজির লেখা একটি চিঠি এবং নচিকেতার গান। যে গানে শিল্পী বলেছেন, ‘তোমার মন খারাপের কারণটা কে, এত সাহস কার?.... তাকে আকাশ থেকে এই মাটিতে নামানো দরকার।’

ইতোমধ্যেই পরীমনির এই পোস্ট দেখেছেন হাজার হাজার নেটিজেন। সেই প্রসঙ্গে নচিকেতা বলেছেন, আমি জানি পরীমনি আমার গান শোনেন। পছন্দও করেন। আমি ওর অনুপ্রেরণা জেনে ভালো লাগছে। সবার বোঝা উচিত, অভিনেত্রীরও ‘না’ বলার অধিকার আছে। সেই ‘না’ উচ্চারণ করেই তিনি আজ এত বিপাকে। এটা ওর দোষ নয়। সমাজের দোষ। একই সঙ্গে তিনি দুষেছেন গণমাধ্যমকেও। নচিকেতার অভিযোগ, সমাজের মতোই এক চক্ষু সংবাদমাধ্যমও। কেচ্ছার গন্ধ পেয়ে নড়ে বসেছে। অভিনেত্রীর হয়ে ক’জন মুখ খুলছে? নচিকেতার আরও আক্ষেপ, সমাজের এই ধারা সব জায়গাতেই সমান। শুধু বাংলাদেশ নয়, ভারতের ছবিও এক।  নইলে নুসরাত জাহানকে নিয়ে এত বিতর্ক তৈরি হতো না।

পরীমনিকে নচিকেতা চক্রবর্তী খোলা বার্তায় আরও জানান, ‘আপনাকে পূর্ণ সমর্থন জানাই। সব সময় পাশে আছি। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

ওআ/