NAVIGATION MENU

পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় প্রণব মুখার্জীর শেষকৃত্য সম্পন্ন


পূর্ণ রাষ্ট্রিয় মর্যাদায় সম্পূর্ণ হল আধুনিক রাজনীতির চাণক্যর শেষকৃত্য। তবে কোভিড বিধির জেরে প্রিয় মানুষটিকে শেষবার চোখের দেখা দেখতে পেলেন না অনেকেই। শুধুমাত্র পরিবারের সদস্যরাই পিপিই কিট পরে নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে লোধি রোড শ্মশানে হাজির ছিলেন। কার্যত নিঃশব্দেই বিদায় নিলেন সকলের প্রিয় ‘প্রণবদ ‘।

সোমবার সন্ধেয় দিল্লির সেনা হাসপাতালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন দেশের একমাত্র বাঙালি রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। তাঁর পর থেকেই দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক মহলে শোকের ছায়া। শোকের ছায়া বাংলাদেশেও। 

কেননা তিনি নড়াইল জেলায় বিয়ে করেছেন। বাংলাদেমের জামাই তিনি। কংগ্রেসের দিল্লি ঘরানার নেতা হয়েও সকল রাজনৈতিক দলের কাছে ভীষণ প্রিয় ছিলেন তিনি। 

শেষবার তাঁকে দেখার জন্য সকলে ছুটে আসতে চেয়েছিলেন অনেকেই। কিন্তু বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় কোভিড বিধি। তাই একাধিক নিয়ম পরিবর্তন করেই সারা হল একমাত্র বাঙালি রাষ্ট্রপতির শেষকৃত্য।

এদিন সকাল থেকে ১০ রাজাজি মার্গে বাড়িতে শেষশ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ দেশের তাবর তাবর ব্যক্তিত্ব। কিন্তু কোভিড পরিস্থিতিতে প্রণববাবুর মরদেহে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে পারেননি অনেকেই। 

বরং নিয়ম ভেঙে তাঁর ছবিতেই ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানান সকলে। দুপুর সোয়া একটা নাগাদ মহামারীর জেরে কামানবাহী শকটের বদলে কাঁচের গাড়িতেই লোধি রোড়ে শ্মশানেই তাঁর মরদেহ নিয়ে আসা হয়।  এখানেই তাঁর স্ত্রীও শেষকৃত্য হয়েছিল। 

সেখানে পিপিই কিট পরে পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়, মেয়ে ও নিকট আত্মীয়রা উপস্থিত হয়। সমস্ত উপাচার করেন ছেলেই। পরে ভারতরত্নের উদ্দেশে গান স্যালুটও দেওয়া হয়। শেষযাত্রাও স্লোগান ওঠে, ‘প্রণবদা অমর রহে’।নশ্বর শরীরটা পঞ্চভূতে বিলীন হয়ে গেলেও আপামর ভারতীয়র মনের মণিকোঠায় তাঁর সদাহাস্যময় মুখটাই রয়ে যাবে।

কোভিডের কারণে মৃতদেহ বাড়ির একটি ঘরে রাখা হয়। সেখানে কাউকে যেতে দেওয়া হয়নি। পরিবর্তে একটি বেদি তৈরি করে প্রণববাবুর ছবি রাখা হয়। সেই ছবিতেই ফুল মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সবাই। 

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও প্রয়াত প্রাক্তন রাষ্ট্রপতিকে শ্রদ্ধা জানান উপ রাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নায়ডু, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ, লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা, চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত, সস্ত্রীক প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ, কংগ্রেসের লোকসভার দলনেতা অধীর চৌধুরী, কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গাঁধী, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীবাল-সহ বহু নেতা-মন্ত্রী ও সাধারণ মানুষ। 

এর আগে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মঙ্গলবারই প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শেষকৃত্য সম্পূর্ণ হবে বলে জানিয়েছিলেন প্রদানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কোভিডবিধি মেনে কাঁচের গাড়িতেই নিয়ে যাওয়া হবে তাঁর মরদেহ।  

এদিন সকাল থেকেই তাঁকে শেষশ্রদ্ধা জানাতে বাসভবনে হাজির হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ বহু গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। এদিনই প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির ছেলে জানান, তাঁদের জঙ্গিপুরের বাড়ির একতলায় প্রণব মুখোপাধ্যায়ের নামে সংগ্রহশালা তৈরি হবে। 

পাশাপাশি, বাবার নামে ডাকটিকিট চালুরও আরজি জানিয়েছেন প্রণবপুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। সোমবার সন্ধ্যায় লড়াই শেষ হয় আধুনিক রাজনীতির চাণক্যর। 

দিল্লির সেনা হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। এরপর থেকে দেশ-বিদেশ থেকে শোকবার্তা এসেছে। সাতদিনের  রাষ্ট্রিয় শোকের ঘোষণা করেছে কেন্দ্রও। 

দিল্লির সেনা হাসপাতাল থেকে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির মরদেহ তাঁর দিল্লির  বাসভবন ১০ রাজাজি মার্গে নিয়ে আসা হয়। সেখানেই মঙ্গলবার সকাল থেকে শেষশ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিতি হয়েছেন সকলে। 

এস এস