NAVIGATION MENU

ফাইজার উৎপাদিত করোনা টিকা পরিবহন শুরু


যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এফডিএ) ছাড়পত্র পাওয়ার পর ফাইজার উৎপাদিত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন পরিবহন শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। আর এই কাজটি করছে ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স।

টিকা বিতরণ যেনো দ্রুত শুরু যায়, এজন্য ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স চার্টার ফ্লাইট পরিচালনা করা শুরু করেছে বলে জানিয়েছে ফক্স নিউজ।

দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, স্থানীয় সময় শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) প্রথম ভ্যাকসিন চালান পরিবহনের অংশ হিসেবে শিকাগোর ও'এয়ার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ব্রাসেলসে ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে ফ্লাইট পরিচালনা করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এফডিএ এবং অন্যান্য নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনের পর ফাইজার দ্রুত এই ভ্যাকসিনটি স্থানান্তেরের সিদ্ধান্তের পর ইউনাইটেড এয়ারের চার্টার ফ্লাইটের মাধ্যমে টিকা পরিবহনের কাজ শুরু করতে যাচ্ছে বলে সংবাদমাধ্যমে খবর বেরোয়।

ইতোমধ্যে ফাইজার জার্মানির প্লিজেন্ট প্রেরি, উইসকো এবং কার্লশ্রুতে নির্দিষ্ট বিতরণ সাইটে স্টোরেজ সক্ষমতা বাড়িয়েছে।

ফাইজার বিশ্বব্যাপী ভ্যাকসিন বিতরণের জন্য কার্গো প্লেন এবং ট্রাকের মাধ্যমে স্যুটকেসে হিমায়িত স্টোরেজ ব্যবহার করার পরিকল্পনা করেছে।

এর আগে ফাইজার কর্তৃপক্ষ জানায়, এফডিএ এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পাওয়ার পর ফাইজার যাতে দ্রুত টিকা সরবরাহ করতে পারে তার জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে।

জর্জ ম্যাসন বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনের সহকারী অধ্যাপক অ্যান্ড্রু পিটারসন জানান, টিকা পরিবহনে সঠিক তাপমাত্রা বজায় রাখা বড় চ্যালেঞ্জ। ফাইজারের টিকাটি পরিবহন ও মজুদের ক্ষেত্রে অবশ্যই মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তামাত্রা বজায় রাখতে হবে। যদি টিকা পরিবহন নিরাপদ এবং কার্যকর প্রমাণিত হয় তবে তা বড় মাইলফলক অর্জন হবে।

গত সপ্তাহে ফাইজার এবং তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বায়োএনটেক করোনভাইরাস ভ্যাকসিনের জরুরি অনুমোদনের জন্য আবেদন করেছে। যাতে এটি যত দ্রুত সম্ভব বিশ্বব্যাপী পৌঁছে দেওয়া যায়।

এডিবি/