NAVIGATION MENU

বগুড়ার যমুনার চরে মরিচের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা


দীর্ঘদিন বন্যার পানিতে নিমজ্জিত থাকার পর সবুজে সমারোহ বগুড়ার সারিয়াকান্দির যমুনার চরগুলো। অর্থকরী ফসল হিসেবে অধিক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে দীর্ঘসময় ফলদানকারী হাইব্রিড মরিচ।

জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে হাইব্রিড মরিচের ভালো ফলন পাওয়ায় কৃষকরা এ জাতের মরিচ চাষে খুবই আগ্রহী হয়ে উঠেছে। এ অর্থবছরে মরিচ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪ হাজার হেক্টর। উপজেলায় সর্বমোট ৩ হাজার ৭০৫ হেক্টর জমিতে মরিচ চাষ হয়েছে। এর মধ্যে হাইব্রিড মরিচের লক্ষ্যমাত্রা ছিল মাত্র ৮০০ হেক্টর যা লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ১ হাজার ৭৩৫ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে। উফসি জাতের মরিচের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩ হাজার ২০০ হেক্টর যা কমে ১ হাজার ৯৭০ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে।

সারিয়াকান্দির প্রায় সব অঞ্চলেই মরিচ চাষ হলেও চরাঞ্চলে মরিচের চাষ অপেক্ষাকৃত বেশি পরিমাণে হয়।

মরিচের সতেজ গাছগুলো বাম্পার ফলনের জানান দিচ্ছে। গত বছরে হাইব্রিড মরিচের ফলন হয়েছিল প্রতি হেক্টরে শুকনো ২.৪ মেট্রিকটন।

চালুয়াবাড়ী ইউনিয়নের হাটবাড়ি চরের মরিচ চাষী ইসমাইল হোসেন বলেন, গত বছর তিনি এক বিঘা জমি হতে সারাবছর খেয়েও ৩৫ হাজার টাকা লাভ পেয়েছেন। এ বছর ফলন আরও বেশি হবে বলে মনে হচ্ছে।

সারিয়াকান্দি উপজেলা কৃষি অফিসার আব্দুল হালিম বলেন, গত কয়েক বছর ধরে হাইব্রিড মরিচের ভাল ফলন পাওয়ায় কৃষকরা এ জাতের মরিচ চাষে খুবই আগ্রহী হয়ে উঠেছে।

এ এস বি/ এস এ/এডিবি