NAVIGATION MENU

বাংলাদেশ থেকে রেমডিসিভির আমদানী করলো পাকিস্তান


বাংলাদেশের কাছ থেকে করোনার অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ রেমডিসিভির আমদানী করেছে পাকিস্তান। গত রবিবার একটি বিশেষ কার্গো ফ্লাইটে ওষুধগুলো পাঠানো হয়েছে।

পাকিস্তানে কভিড-১৯-এ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের প্রস্তুতকৃত রেমডিসিভির (ব্র্যান্ড নাম বেমসিভির) নিয়েছে দেশটি। বেক্সিমকোর এক মুখপাত্র জানান, ঢাকায় পাকিস্তান দূতাবাসের অনুরোধে এগুলো পাঠানো হয়েছে।

দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত তিনজন গুরুতর অসুস্থকে জরুরি চিকিৎসা দিতে ৪৮টি ইঞ্জেকশন নিয়েছে তারা।  পাকিস্তানে ৭২ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত। মৃত্যু ঘটেছে দেড় হাজারের বেশি।

সুস্থ হয়েছেন ২৬ হাজারের বেশি। এর আগে নভেল করোনাভাইরাসের তীব্র প্রকোপের মুখে বাংলাদেশ থেকে রেমডেসিভির কেনার কথা জানায় পাকিস্তান। সে দেশের তৃতীয় বৃহত্তম ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান সিয়ারলে কোম্পানি লিমিটেড রেমডেসিভির আমদানির জন্য বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষ ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের সঙ্গে একটি চুক্তি সই করে।

এই চুক্তির সুবাদে সিয়ারলে এককভাবে পাকিস্তানে বেক্সিমকোর উৎপাদিত রেমডেসিভির, যার ব্র্যান্ড নাম বেমসিভির, আমদানি ও বাজারজাত করতে পারবে। মূলত রেমডেসিভির যুক্তরাষ্ট্রের গিলিয়েড সায়েন্সেসের উদ্ভাবিত একটি ওষুধ।

ইবোলা ভাইরাসের চিকিৎসায় এর উদ্ভাবন ঘটে। যদিও ইবোলার চিকিৎসায় তেমন সাফল্য দেখেনি ওষুধটি। করোনায় আক্রান্তদের ওপর রেমডিসিভির প্রয়োগ করে মৃত্যুহার কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। আবার রোগমুক্তিতেও কম সময় লেগেছে।

লকডাউন তুলে নেওয়ার পর বাংলাদেশে তর তর করে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে।গত ২৪ ঘণ্টায় মহামারি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আরো ৩৭ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

এ নিয়ে দেশে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৭৪৬ জনে। এদিকে বাংলাদেশ   করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৭৪৬ জনে।

এস এস