NAVIGATION MENU

বিয়ের জন্য ৮৫০ কিমি সাইকেল চালিয়ে এসে কপালে জুটলো কোয়ারেন্টিন


গল্প মনে হলেও এমন বাস্তবতার শিকার ভারতের সোনু কুমার চৌহান। পাঞ্জাব প্রদেশের লুধিয়ানা থেকে তিনি যখন তিন বন্ধুকে নিয়ে সাইকেলে চড়ে বাড়ির উদ্দেশে বেরিয়েছিলেন তখনও জানতেন না, কপালে কী নাচছে! সোনুর বাড়ি নেপালের সীমান্তবর্তী মহারাজগঞ্জের পিপড়া রসুলপুরে।

বাড়ি পৌঁছোতে যখন আর মাত্র ১৫০ কিমি বাকি তখনই ফ্যাসাদে পড়ে গেলেন সোনু ও তার বন্ধুরা। চার জনকেই সীমান্তরক্ষী বাহিনী আটক করে পৌঁছে দিলেন কোয়ারেন্টিন সেন্টারে।

লকডাউনের মধ্যেও টানা ৭ দিন সাইকেল চালিয়ে কেন ৮৫০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে এভাবে বাড়ি ফিরছিলেন সোনু? বৈশাখীর পরেই যে বিয়ে ছিল তার।

পেশায় লুধিয়ানার একটি টাইলস কারখানার কর্মী সোনু বাড়ি থেকে যখন মাত্র দেড়শো কিমি দূরে তখনই চারজন চোখে পড়ে যান সীমান্তরক্ষী বাহিনির। সঙ্গে সঙ্গে তাঁদের নিয়ে যাওয়া হয় কোয়ারেন্টিন সেন্টারে। কারণ, তারা এক শহর থেকে অন্য জায়গায় আসছিলেন।

হতাশ সোনু সংবাদমাধ্যমকে জানান, 'কোনও মতে আর মাত্র দেড়শো কিমি পথ পেরিয়ে বাড়ির এলাকায় ঢুকে যেতে পারলেই কেউ আটকাতো না। কিন্তু কপাল খারাপ। ধরা পড়ে গেলাম। বিয়ে তো হলই না। উপরন্তু এখন এভাবে সেন্টারে থাকতে হবে।'

যদিও তিনি পরে আরও যোগ করেন, বিয়ে পরেও হতে পারে। আগে সবার সুস্থতা জরুরি।

এদিকে বলরামপুরের এসপি দেবরঞ্জন ভার্মা জানিয়েছেন, চৌহান ও তার বন্ধুরা যখন জেলায় প্রবেশ করছিলেন তখনই তাদের থামানো হয়েছিল। নিয়ে যাওয়া হয়েছিল কোয়ারেন্টিন সেন্টারে। ১৪ দিন পরে করোনা টেস্টের রেজাল্ট নেগেটিভ এলে ছেড়ে দেওয়া হবে চারজনকেই।

ততদিনে বিয়ের দিন, লগ্ন, সময় পেরিয়ে বাসি। পাত্রীও অপেক্ষায় থাকবেন তো?

এডিবি/