NAVIGATION MENU

বেনাপোলে ২০ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে শাড়ির চালান আটক


বেনাপোল বন্দরে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ভারতীয় শাড়ির একটি চালান পাচারের সময় আটক করেছে কাস্টমস কর্মকর্তারা। ফাঁকি দেওয়া রাজস্বের পরিমান ২০ লাখ টাকা।

মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) দুপুরে বন্দরের ১৩ নম্বর শেড থেকে এই চালানটি পাচার করা হচ্ছিল।

পরে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ কাগজপত্র পরীক্ষা করে বিকেলে শুল্কফাঁকির বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন।

বেনাপোল কাস্টমস সূত্র জানায়, যশোরের ভাবনা এন্টারপ্রাইজ নামে একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ভারত থেকে ৬০২ প্যাকেট রকমারি পণ্য আমদানি করেন। যার কাস্টমস বি/ই নাম্বার-৩২৯৩৭ তারিখ- ১৩/০৮/২০। এই চালানটি ছাড়ের দায়িত্বে ছিলেন পুটখালি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার হাদিউজ্জামানের মালিকানাধীন সিঅ্যান্ডএফ অ্যাজেন্ট রিমু এন্টারপ্রাইজ। 

পণ্যের এই চালানটি কাস্টমস ও বন্দরের সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষে বন্দর থেকে ছাড় নেওয়ার সময় কৌশলে একই শেডে লুকিয়ে রাখা অতিরিক্ত ১০ বেল উন্নতমানের বিয়ের শাড়ি ট্রাকে তুলে নিয়ে যায়। গোপন খবরে তা জানতে পেয়ে কাস্টমস সদস্যরা পণ্য চালানটি আটক করেন। জব্দ করা ট্রাকে অতিরিক্ত ১০ বেল শাড়ির কোনো কাগজপত্র ছিল না।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে এই রিমু এন্টারপ্রাইজ ভারত থেকে আমদানি করা একটি মাছের চালানে ১১ লাখ টাকার রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার বিষয়টি ধরা পড়ে।

অভিযোগ রয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে প্রভাব খাটিয়ে বন্দর থেকে কাগজপত্র ছাড়াউ নো এন্ট্রি মালামাল পাচার করে আসছিল রিমু এন্টারপ্রাইজ। সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে কোটি কোটি অবৈধ টাকার মালিক হয়েছেন মাস্টার হাদিউজ্জামান।

বেনাপোল কাস্টমস হাউসের কমিশনার আজিজুর রহমান জানান, গোঁপন খবর পেয়ে রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে সিঅ্যঅন্ডএফ অ্যাজেন্ট রিমু এন্টারপ্রাইজের একটি শাড়ির চালান জব্দ করা হয়েছে। যার কোনো কাগজপত্র ছিল না। রিমু এন্টারপ্রাইজের লাইসেন্স বাতিলের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এডিবি/