NAVIGATION MENU

রাতে ফ্যান ব্যবহারে সাবধানী হন


এই সময়টাতে রাতের প্রথম প্রহরে থাকে গরম। এরপর মাঝরাতে ঘুমের মধ্যেও আমরা অনুভব করি হালকা বা মাঝারি ধরনের শীত। 

ঘুমের কারণে আমাদের আর ওঠা হয় না। অধিকাংশ সময় আমাদের ফ্যান ছাড়া থাকা যায় না। এমন আবহাওয়ায় অনেক সাবধানীরা রাতভর ফ্যান ছেড়ে চাদর জড়িয়ে ঘুমান। এতে কিন্তু কিছু মানুষের ক্ষতি হতে পারে।

ভালো ঘুমানোর জন্য নানা ধরনের পরামর্শ দেওয়া ওয়েবসাইট ‘স্লিপ অ্যাডভাইজরে’ বলা হয়েছে, যাদের অ্যাজমা, আলার্জি অথবা সারাক্ষণ জ্বর-জ্বর ভাব থাকে তাদের কিছুটা ক্ষতি হতে পারে।

সিলিং, টেবিল বা মুভিং ফ্যানের কারণে ঘূর্ণায়মান বাতাসে ধুলোবালি সারাক্ষণ রুমে ঘুরতে থাকে। ফ্যানের বাতাস অনেকের আবার চামড়া শুষ্ক করে দেয়। যাদের এমন হয়, তারা রাতে ঘুমানোর সময় ময়শ্চারাইজিং ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন।

রাতভর ফ্যানের বাতাসে ঘুমালে চোখের কিছুটা সমস্যা হতে পারে, বিশেষ করা যারা লেন্স কিংবা চশমা পরেন। চোখে একটা শুষ্ক ভাব আসতে পারে।

খুব বেশি গরম না পড়লে বিকল্প উপায়ে রুম ঠাণ্ডা রাখতে পারেন। এ জন্য রাতে জানালায় ভেজা চাদর ঝুলিয়ে দিতে হবে। দিনের বেলায় পর্দা বন্ধ রাখাও ভালো।

বেশি গরম পড়লে রুমের তাপমাত্রা ঠিক রাখতে ফ্যান চালানো যেতে পারে। যাদের এসি নেই, তারা একটি বিশেষ প্রক্রিয়ায় ফ্যানের সাহায্যে এসির সুবিধা পেতে পারেন।

এ জন্য যা করবেন: পাঁচ থেকে ছয়টি বোতলে পানি ভরে তিন টেবিল-চামচ করে লবণ দিন। তারপর ফ্রিজে রাখুন। রাতে ঘুমানোর সময় ট্রেতে করে বোতলগুলো ফ্যানের সামনে রাখুন। পানি ভালো করে জমাট হলে বোতলের মুখ হালকা খুলে রাখতে হবে।এভাবে প্রতিদিন বোতল ফ্রিজে রেখে ব্যবহার করলে রুম ঠাণ্ডা থাকবে।

এস এস