NAVIGATION MENU

সর্দি-কাশির সঙ্গে করোনাভাইরাসের সম্পর্ক কী!


করোনাভাইরাসরে তাণ্ডবে বিশ্বের মানুষ কোণঠাসা । লোকের আগে অহরহ সর্দি-কাশি লেগে থাকলেও কেয়ার করতেন না্ কিন্তু এখন  করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হ্ওয়ার একটা লক্ষণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বলা হচ্ছে, সর্দি-কাশি হলেই কি ঘরে বন্দি থাকতে হবে? নাকি সাধারণ অসুখ মনে করে তার নিরাময় করবেন?  আপনি কীভাবে বুঝবেন এটি সাধারণ সর্দি-কাশি নাকি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ? 

তবে  চিকিৎসকরা বলছেন- জ্বর-সর্দি-হাঁচি-কাশি হলে অন্যান্যবারের মতোই ঘরোয়া উপায় মেনে চলতে হবে। 

ঘরে শুয়ে-বসে বিশ্রাম নেবেন। হালকা খাবার খাবেন। হালকা গরম পানি পান করবেন পর্যাপ্ত। দরকার মতো প্যারাসিটামল, কাশির ওষুধ খাবেন একটু আধটু। হাঁচি-কাশির সময় পরিষ্কার রুমাল ব্যবহার করবেন।

শিশু, বয়ষ্ক, রুগ্ণ ও গর্ভবতীদের থেকে দূরে থাকবেন। এটুকু করলেই ধীরে ধীরে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার মাধ্যমেই ভাইরাসকে কাবু করা যাবে। তখন বুঝতে হবে এটা সাধারণ ফ্লু-ই ছিল।

যদি ১০ দিনেও অসুখ না কমে তবে অবশ্যই সরকারি হেল্পলাইন নম্বরে ফোন করে সমস্যা জানাবেন। দায়িত্বে থাকা মেডিকেল অফিসার আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করে করোনা হয়েছে কি-না তা বুঝতে পরীক্ষার ব্যবস্থা ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন।

মেডিক্যাল টিম ঠিক করবে অ্যান্টিবায়োটিক বা অন্য ওষুধ খেতে হবে কি না। আপনার যদি কোনও রিস্ক ফ্যাক্টর না থাকে, অর্থাৎ সম্প্রতি বিদেশ যাননি বা আশপাশে এ ধরনের রোগী নেই, তা হলে ভয় তুলনায় অনেক কম।

কিন্তু আশপাশে এ ধরনের রোগী নেই তা কী করে বোঝা যাবে? হাঁচি-সর্দি নিয়ে তো অনেকেই ঘুরে বেড়ান। তাদের কারো যদি এই সংক্রমণ হয়ে থাকে ও তিনি যদি ধারে-কাছে এসে হাঁচি-কাশি দেন, তাহলে সমস্যা হতেই পারে।

চিকিৎসকদের মতে, এই ভাইরাস যদি ১০০ জনকে সংক্রামিত করে তার মধ্যে ১০-১৫ জনের অবস্থা জটিল হয়। বিপদ হয় দু’-এক জনের। বাকি ৮০-৮৫ শতাংশ মানুষের সাধারণ ভাইরাস সংক্রমণের মতো উপসর্গ হয়। শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হলে তা নিজের নিয়মেই কমে যায়। তবে এরা অসুস্থ শরীরে রোগ ছড়াতে পারে।

প্রথমত, রোগ হলেও ৮০-৮৫ শতাংশ সম্ভাবনা যে আপনি প্রথম প্রথম অসুখটা টেরও পাবেন না। কাজেই রোগ হচ্ছে এমন কোনো জায়গায় যদি সফর না করে থাকেন, তা হলে নূন্যতম সচেতনতা মেনে চললেই হবে।

এস এস