NAVIGATION MENU

সোনার হরিণের আশায় ভূমধ্যসাগরে নৌকাযুবিতে ফের ১৭ বাংলাদেশির প্রাণহানি


জীবনহানীর আশঙ্কা জেনেও তাদের চলা থেমে নেই। আশা যদি উইরোপে একবার ঢোকা যায়, তবে জীবন হবে সুখে-ঐশ্বযে ভরা। তাই তারা সোনার হরিণ ধরার আশায় প্রতিনিয়ত ঝঞ্ঝা-উত্তালময় ভূমধ্যসাগরটি শুধুমাত্র নৌকার ওপর পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করেন। 

এবারও লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে কমপক্ষে ১৭ জন বাংলাদেশি অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বুধবার তিউনিসিয়ার রেড ক্রিসেন্টের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে।

লিবিয়ার উত্তরপশ্চিম উপকূলের জুয়ারা থেকে সিরিয়া, মিসর, সুদান, মালি ও বাংলাদেশের অভিবাসীদের নিয়ে রওনা দেয় নৌযানটি। ওই ঘটনায় সাগর থেকে ৩৮০ জনের বেশি আরোহীকে উদ্ধার করেছে তিউনিসিয়ার কোস্টগার্ড।

রেড ক্রিসেন্টের কর্মকর্তা মংগি স্লিম বলেন, ‘১৭ জন বাঙালি মারা গেছে এবং ৩৮০ জনের বেশি অভিবাসীকে উদ্ধার করা হয়েছে যারা লিবিয়ার জুয়ারা থেকে ইউরোপের পথে রওনা দিয়েছিল।’

গত কয়েক মাসে তিউনিসিয়ার উপকূলে বেশ কয়েকটি নৌযানডুবির ঘটনা ঘটেছে। অভিবাসনের প্রত্যাশায় তিউনিসিয়া ও লিবিয়া থেকে ইউরোপের উদ্দেশে, বিশেষ করে ইতালিতে পৌঁছানোর জন্য ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেওয়ার ঘটনা বেড়েছে। 

ইউরোপের প্রধান গন্তব্য ইতালিতে গত কয়েক বছরে অভিবাসন প্রত্যাশীদের প্রবেশের সংখ্যা কমে এলেও ২০২১ সালে তা আবার বাড়তে শুরু করেছে

এস এস