NAVIGATION MENU

৪০ টাকা কেজির পেঁয়াজের ঝাঁজ উঠলো ৭০ টাকায়


এতোদিন স্বস্তিতে ছিলেন দেশের  ভোক্তারা। অনেকদিন ধরেই পিঁয়াজ বিক্রি হচ্ছিল ৪০ টাকা কেজিতে। এবার তা প্রায় দ্বিগুণ অর্থাৎ ৭০ টাকা কেজিতে উঠলো।

যদিও পাইকারিবাজারে পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১০ টাকা কমলেও খুচরা বাজারে কেজিতে ১৫ টাকা বাড়ানো হয়েছে।

রাজধানী ঢাকার খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা। বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, খুচরা বিক্রেতারা কারসাজি করে দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছেন। তাই বাজারে মনিটরিং জোরদার করা দরকার। মনিটরিং না বাড়ালে খুচরা বিক্রেতারা দাম আরও বাড়াবেন।

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) বলছে, এক মাসের ব্যবধানে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৬৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ। আর আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৮১ দশমিক ৮২ শতাংশ।

ভোক্তার স্বার্থ নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান কনজ্যুমার ইয়ুথ বাংলাদেশ (সিওয়াইবি) নির্বাহী পরিচালক পলাশ মাহমুদ বলেন, পণ্যটি নিয়ে যারা কারসাজি করছেন তাদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। এছাড়া অন্যান্য নিত্যপণ্যের দামও হু হু করে বাড়ছে।

রাজধানীর পাইকারি আড়ত শ্যামবাজারে পাইকারি পর্যায়ে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৪৫ টাকা। আমদানি করা পেঁয়াজ প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ৩৫ টাকা। যা দু’দিন আগে বিক্রি হয় ৪০ টাকা।

শ্যামবাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী ও আমদানিকারক শংকর চন্দ্র ঘোষ বলেন, কয়েকটি কারণে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির সরবরাহে ঘাটতি থাকায় দাম বেড়েছে। তবে গত দু’দিন থেকে পাইকারি পর্যায়ে সরবরাহ বাড়ায় দাম কমতে শুরু করেছে।

সর্বশেষ ভারত থেকে তিন হাজার টন পেঁয়াজ পাইকারি পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে। তাই দাম আরও কমবে।  খুচরা বিক্রেতারা কারসাজি করে পেঁয়াজ ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন। 

এস এস