NAVIGATION MENU

দেবিদ্বারে বলাৎকারের অভিযোগে মাদরাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার


কুমিল্লার দেবিদ্বার পৌর এলাকার ‘জামিয়া ইসলামিয়া বাইতুন-নূর হাফিজিয়া মাদরাসার’ এক শিশুকে বলাৎকারের ঘটনায় ওই মাদরাসার শিক্ষক ক্বারী মোহাম্মদ শাহজালাল মাঝিকে (২৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি হলেন, জামিয়া ইসলামিয়া বাইতুন-নূর হাফিজিয়া মাদরাসার শিক্ষক ক্বারী মোহাম্মদ শাহজালাল মাঝি (২৫)। সে উপজেলার ধামতী (উত্তরপাড়া মাঝিবাড়ি) গ্রামের মো. নজরুল ইসলাম মাঝির ছেলে।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) সকালে তাকে কুমিল্লা আদালতে পাঠানো হলে বিচারক তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গত ৬ নভেম্বর রাত ১০টায় দেবিদ্বার নিউমার্কেট কলেজ রোডের মাদরাসার আবাসিক কক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

শনিবার সকালে ওই ঘটনায় ভিকটিমের (১৩) বাবা বাদী হয়ে শাহজালাল মাঝিকে আসামী করে দেবিদ্বার থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজহারে উল্লেখ করা হয়, শিশুটি ওই মাদরাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র এবং আবাসিক কক্ষে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে থাকতো। শিক্ষক ক্বারী মোহাম্মদ শাহজালাল প্রায়ই তাকে খারাপ উদ্দেশ্যে যৌননিপীড়নের চেষ্টা করে আসছিলো।

ঘটনার দিন তাকে নানাভাবে মারধর ও ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং কোরান শরীফ দ্বারা তার মাথা খারাপ করে ফেলবে বলে হুমকী দিয়ে বলাৎকার করে। বিষয়টি তার মা ও বাবাকে বললে, তারা মাদরাসার পরিচালনা পর্ষদ ও প্রধানের সাথে যোগাযোগ করেন। পরে তারা আইনের আশ্রয় নিতে বলেন।

জামিয়া ইসলামিয়া বাইতুন-নূর হাফিজিয়া মাদরাসার প্রধান মাওলানা আবু সাঈদ সোহেল জানান, ঘটনার সত্যতা প্রমাণ হলে তার সর্বোচ্চ বিচার দাবি করছি। আমার মাদরাসায় মোহাম্মদ শাহজালালসহ ৩জন শিক্ষক ও প্রায় ৫০জন শিক্ষার্থী রয়েছে, এর আগে তার বিরুদ্ধে এরকম কোন অভিযোগ পাইনি।

দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি, তদন্ত) মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ জানান, বলৎকারের ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

কেডিএইচ/ ওয়াই এ/এডিবি