ন্যাভিগেশন মেনু

শাইখুল ইসলাম রতন

Staff Correspondent
শাইখুল ইসলাম রতন
Jul 26, 2023

জাতীয়

জনগণ অতিষ্ঠ হলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ হতে পারে - ডিএমপি কমিশনার

জনগণ অতিষ্ঠ হলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ হতে পারে - ডিএমপি কমিশনার

জনগণ অতিষ্ঠ হলে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপে বাধ্য হব বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক।বুধবার (২৬ জুলাই) রাজধানীর লালবাগ হোসেনি দালান ইমামবাড়ায় পবিত্র আশুরা উদযাপন ও তাজিয়া মিছিল উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন ঢাকা মহানগর পুলিশ  কমিশনার।এসময় তিনি রাজনৈতিক দলগুলোর উদ্দেশ্যে বলেন, ওয়ার্কিং ডে’তে বিশাল বিশাল জনসভা করে লাখ লাখ লোককে রাস্তায় আটকে রাখার মতো বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে। রাজনৈতিক দল যেন ভবিষ্যতে ওয়ার্কিং ডে’তে রাজনৈতিক কর্মসূচির না দিয়ে বন্ধের দিনগুলোতে কর্মসূচি গ্রহণ করেন। রাজনৈতিক কর্মসূচিতে যেন জনগণের ভোগান্তি না হয়, হলে বাধ্য হয়ে এসব কর্মসূচির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে হতে পারে বলেও জানান। আর যারা সমাবেশে আসবেন তারা যেন লাঠি-সোটা বা ব্যাগ না নিয়ে আসেন। যাতে করে বিস্ফোরক বা সাপোর্টাইজ না থাকতে পারে সেদিকেও নজর দেবার কথা বলেন।ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, রাজনৈতিক সমাবেশ করা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার কিন্তু জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ঢাকা মহানগর পুলিশের দায়িত্ব এবং কর্তব্য। আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ সমাবেশের অনুমতির চেয়ে ৯টি দল আবেদন করেছেন  আমরা পর্যালোচনা করে কয়েকটি রাজনৈতিক দল কে অনুমতি দেবো।খন্দকার গোলাম ফারুক আরও বলেন, আমি সব রাজনৈতিক দলকে বলবো যারা অনুমতি পাবেন, তারা সমাবেশ করেন কিন্তু জনগণকে কষ্ট না দিয়ে। হয়তো ভবিষ্যতে এমন সময় আসবে জনগণ অতিষ্ঠ হয়ে গেলে আমাদের বাধ্য হয়ে এসব কর্মসূচির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে হতে পারে।...


Jul 24, 2023

জাতীয়

      ডিএনসিসির ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা

ডিএনসিসির ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা

মশক নিয়ন্ত্রণ, জলাবদ্ধতা নিরসন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়নকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে মশা মারতে ১১৪ কোটি টাকা বরাদ্দ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের । সোমবার (২৪ জুলাই) দুপুর ১২টায় গুলশানে ডিএনসিসির নগর ভবনে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা অনুষ্ঠানে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘একটি টেকসই ও নিরাপদ শহর বিনির্মাণে আমরা কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি। আমি মশক নিয়ন্ত্রণ, জলাবদ্ধতা নিরসন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়নকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। মশা নিধনে নিয়মিত লার্ভিসাইডিং ও এডিসের প্রজননস্থল ধ্বংসের পাশাপাশি অন্যান্য যেসব পদক্ষেপ নিয়েছি তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান, বিএনসিসি ও বাংলাদেশ স্কাউটের সদস্যদের যুক্ত করে প্রচারাভিযান পরিচালনা, ডিএনসিসির আওতাধীন এলাকার মসজিদ ও মাদরাসার এক হাজার ইমাম ও খতিবদের সঙ্গে এবং স্কুল ও কলেজের প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষের সঙ্গে মতবিনিময় সভা, ছাদ বাগানে এডিসের লার্ভা শনাক্তে ড্রোনের ব্যবহার।‘তিনি আরও বলেন, ‘এ ছাড়াও জনগণকে সচেতন করতে ডিএনসিসির দশটি অঞ্চলে দশজন ডেডিকেটেড পিআর নিযুক্ত করা হয়েছে। মশক নিয়ন্ত্রণে মশার প্রজাতি ও মশার আচরণ নির্ণয় করে সঠিক ও কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে গবেষণার জন্য চুক্তি করা হয়েছে। এ বছরের বাজেটেও মশা নিধনকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।‘ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ‘২০২২-২৩ অর্থ বছরের সংশোধিত বাজেটে মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে ৫২ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। চলতি বছর তথা ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেটে এ খাতে ৮৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা বরাদ্দ রেখেছি। যা গত অর্থবছরের বাজেটের চেয়ে বরাদ্দের হার ৬১ শতাংশ বেশি। এ ছাড়া গত অর্থবছরে মশক নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রপাতি কিনতে ১৫ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। চলতি অর্থবছরে ৩০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। যা আগের চেয়ে ১০০ শতাংশ বেশি।‘উল্লেখ্য যে, রাজধানীতে ভয়াবহ ডেঙ্গুর ঝুঁকি বাড়ায় ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ১১টি এলাকাকে ‘রেড জোন’ ঘোষণা করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।দুই সিটি কর্পোরেশন শুধু বর্ষা মৌসুমে তৎপর হওয়ায় ক্রমেই  ডেঙ্গু  পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) ছয়টি  এবং উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) পাঁচটি এলাকা কে ‘রেড জোন’ ঘোষণা করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে,...


Jul 22, 2023

জাতীয়

                                                          ডেঙ্গু ঝুকিতে বিশ্ব

ডেঙ্গু ঝুকিতে বিশ্ব

বিশ্বজুড়ে জনসংখ্যার অর্ধেক ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ায়  ঘোষণা করতে হতে পারে মহামারী। গত ২২ বছরে বিশ্বজুড়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী বেড়েছে আটগুণ চলতি বছর আরও বাড়ার সম্ভবনা।সুইজারল্যান্ডের রাজধানী জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার কন্ট্রোল অব নেগলেক্টেড ট্রপিক্যাল ডিজিজ বিভাগের বিশেষজ্ঞ ড. রমন ভেলাইউধান এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি এবং পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে অতিবর্ষণজনিত কারণে বন্যার প্রকোপের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ডেঙ্গুর বিস্তার। আক্রান্ত রোগীর হিসেবে চলতি বছরই বিশ্বজুড়ে এই রোগটি রেকর্ড করতে পারে।বিশেষজ্ঞ ড. রমন ভেলাইউধান এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে আরও বলেন,“বিশ্বজুড়ে বাড়ছে ডেঙ্গুতে আক্রান্তদের সংখ্যা। এই মুহূর্তে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। বৃষ্টিবহুল ও উষ্ণ অঞ্চলগুলোতে অকল্পনীয় দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাসজনিত এই রোগ।”সংক্রমণের বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে বর্তমানের এই আক্রান্তদের সংখ্যায় অল্প কিছুদিনের মধ্যে আরও ৪০ লাখ মানুষের যুক্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান ড. রমন ভেলাইউধান।তিনি বলেন, “বর্তমানে বিশ্বে যে পরিমাণ ডেঙ্গু রোগী আছেন, এই রোগটির বিস্তার রোধ করা না গেলে চলতি বছরই রেকর্ড সংখ্যক মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হবেন। সামনের দিন গুলোতে হয়তো ডেঙ্গুকে মহামারীও ঘোষণা করতে হতে পারে।”সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচওর এই বিশেষজ্ঞ বলেন, “আমাদের হাতে থাকা তথ্যানুসারে বর্তমানের বিশ্বের ১২৯টি দেশে ৫২ লাখ মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত এবং তাদের মধ্যে প্রায় ৩০ লাখ মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন দেশের। আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে বলিভিয়া, প্যারাগুয়ে এবং পেরুতে এই রোগে আক্রান্তদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।”ডব্লিউএইচওর কাছে আক্রান্ত রোগীদের যে পরিসংখ্যান রয়েছে, তাতে অধিকাংশ রোগীই আক্রান্ত হওয়ার পর জ্বর, মাংসপেশিতে ব্যথা প্রভৃতি উপসর্গে ভুগছেন। অনেকের আবার দেহে কোনো উপসর্গ নেই, কিন্তু প্লাটিলেট আশঙ্কাজনক পর্যায়ে নেমে গেছে। এই আক্রান্তদের মধ্যে অন্তত ১ শতাংশ মারা গেছেন।“এশিয়ার দেশগুলো হয়তো এই রোগের বিস্তার নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে, কিন্তু মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর জন্য ডেঙ্গুর বিস্তার নিয়ন্ত্রণ বড় একটি চ্যালেঞ্জ,” যোগ করেন তিনি।ডেঙ্গুর বিস্তারের জন্য প্রয়োজন উষ্ণ আবহাওয়া। এডিস নামের যে জাতের মশা এই রোগের প্রধান বাহন হিসেবে...


Jul 18, 2023

জাতীয়

হামলার ঘটনায় সাতজন আটক

হামলার ঘটনায় সাতজন আটক

ঢাকা-১৭ আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমের ওপর হামলার ঘটনায় ভিডিও ফুটেজ দেখে এখন পর্যন্ত সাতজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) প্রধান হারুন অর রশীদ।মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিবিপ্রধান বলেন, ‘সোমবার বনানী বিদ্যানিকেতন ভোট কেন্দ্রে বিচ্ছিন্ন একটা ঘটনা ঘটেছে। তিন থেকে চার মিনিটের হামলার ঘটনায় সাতজনকে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে আমাদের তদন্ত চলছে। বাকি কিছু নাম পেয়েছি তাদের বিষয়ে আমাদের তদন্ত চলছে।’ঢাকা-১৭ আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলমের ওপর হামলার ঘটনায় সাতজনকে আটক করা হয়েছে, তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। হিরো আলম নিজেই এই ঘটনা ঘটিয়েছেন কি না তা তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন ডিবিপ্রধান।হারুন অর রশীদ আরও বলেন, ‘গলার মধ্যে ব্যাজ ধারণ করে যারা এই হামলা করেছে তাদের মোটিভ কী ছিল তা আমরা তদন্ত করে দেখছি। এক দলের ব্যাজ ধারণ করা লোক তৃতীয় কোনো পক্ষের ছিল কি না তা আমরা জানার চেষ্টা করছি। তদন্ত চলছে।’হিরো আলমের ওপর হামলার সময় পুলিশের কোনো গাফিলতি ছিল কি না জানতে চাইলে ডিবিপ্রধান সাংবাদিকদের বলেন, ‘ফুটেজে দেখেছেন আপনারা হিরো আলমের ওপর হামলার সময় ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশ সদস্যরা নিবৃত করেছে। এরপর তাকে উদ্ধার করে পুলিশ সদস্যরাই। যদি পুলিশের গাফিলতি থাকে তদন্ত করে দেখা হবে। যারা এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে তারা কোন দলের তা দেখা হবে না। যারাই ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’হিরো আলম নিজেই এ ঘটনা ঘটিয়েছে কি না জানতে চাইলে হারুন অর রশীদ বলেন, ‘তদন্ত করে বিষয়টি দেখা হবে।’উল্লেখ্য যে, সোমবার ঢাকা-১৭ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলম বিকাল সাড়ে চারটার দিকে বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুলের ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনে গেলে মারধরের ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার হিরো আলমকে রাজধানীর রামপুরার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবশ্য তিনি হাসপাতাল ছেড়ে বাসায় ফেরেন। সদ্য অনুষ্ঠিত ঢাকা-১৭ আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলম ২৩ হাজার ২০৭ ভোটের ব্যবধানে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আলী আরাফাতের কাছে পরাজিত হয়েছেন। তবে তিনি ছাড়া অন্য ছয়...


Jul 11, 2023

জাতীয়

বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে রুপিতে লেনদেন কার্যক্রম উদ্বোধন

বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে রুপিতে লেনদেন কার্যক্রম উদ্বোধন

বাংলাদেশের সঙ্গে প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিকভাবে মঙ্গলবার  উদ্বোধন হল বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে রুপিতে লেনদেন কার্যক্রম। ভারতের সঙ্গে মার্কিন ডলারে লেনদেনের বিদ্যমান ব্যবস্থার পাশাপাশি রুপিতে লেনদেন  বিষয়ে দুই দেশের প্রাথমিক প্রস্তুতি শেষ।মঙ্গলবার (১১ জুলাই) বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে  প্রথমবারের রুপিতে লেনদেন আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার, রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার (আরবিআই) গভর্নর শক্তিকান্ত দাস ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে রুপিতে লেনদেন কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।অনুষ্ঠানে ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা বলেন, ‘এটা দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার অঙ্গীকারের নিদর্শন।’ বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, ডলারের ওপর চাপ কমাতেই, দীর্ঘ চিন্তা ভাবনা করে আমারা এইপথে গিয়েছি।চীনের মুদ্রা ইউয়ানে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা ঋণপত্র (এলসি) খুলতে পারছেন। এর সঙ্গে এবার যুক্ত হচ্ছে রুপি। ভারতের সঙ্গে এখন দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যে রুপি ব্যবহার করা যাবে।রুপিতে বাণিজ্যকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন দেশের ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, এর মাধ্যমে দুই দেশের সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় যাবে। একই সঙ্গে ভারতেও বাংলাদেশি মুদ্রা টাকার প্রচলনের কথা বলছেন তারা। কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, এর মাধ্যমে সময়ের সঙ্গে খরচও কমে আসবে। ডলারও সাশ্রয় হবে।এ বিষয়ে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আফজাল করিম বলেন, ‘রুপিতে লেনদেন চালুর বিষয়ে আমরা ইতোমধ্যে প্রস্তুতি শেষ করেছি। স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া এবং আইসিআইসিআই ব্যাংকে হিসাব খোলা হয়েছে এবং এই দুই ব্যাংকের সঙ্গে সুইফট কমিউনিকেশন সিস্টেম চালু করা হয়েছে।‘ভ্রমণ, চিকিৎসা ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশি ভারত সফর করেন। রুপিতে লেনদেন হলে এখানেও ডলার সাশ্রয় হবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একটি সূত্র জানায়, ইনফরমাল ও ফরমাল মিলে ভারতের সঙ্গে প্রায় ২৬ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য হয় বাংলাদেশের।কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, বর্তমানে ডলারে দেশের বাণিজ্য হয়, যেটা সম্পন্ন হয় সুইফটের মাধ্যমে। এটি তাৎক্ষণিক মেসেজিং ব্যবস্থা, যা কোনো লেনদেনের ব্যাপারে গ্রাহককে তৎক্ষণাৎ জানিয়ে দেয়। সুইফটে লেনদেনে কোনো কোনো ক্ষেত্রে ৩০ ডলার পর্যন্ত প্রয়োজন পড়ে। এক্ষেত্রে রুপিতে বাণিজ্য হলে আর ডলারে কনভার্ট করার প্রয়োজন পড়বে না, এতে দেশের ডলার সাশ্রয় হবে।দেশের ব্যবসায়ীরা বলছেন, রুপিতে বাণিজ্যের সঙ্গে টাকার প্রচলনও প্রয়োজন। আমদানিকারকরা বলছেন, রুপিতে ট্রেড হলে সুবিধা অনেক। অনেক ক্ষেত্রেই ডলার সংকটে এলসি খোলা যায় না,...


Jul 10, 2023

জাতীয়

আগস্ট-সেপ্টেম্বর মহামারি আকার ধারণ করতে পারে ডেঙ্গু

আগস্ট-সেপ্টেম্বর মহামারি আকার ধারণ করতে পারে ডেঙ্গু

আগস্ট-সেপ্টেম্বর মাস ঘিরে মহামারি আকার ধারণ করতে পারে ডেঙ্গু। আক্রান্তের ভয়াবহতা এ বছরের প্রথম ছয় মাসে দেশে রেকর্ড সংখ্যক মানুষের ডেঙ্গু শনাক্ত ও মৃত্যু হয়েছে। ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ার শঙ্কার কথা জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, সজাগ না হলে ডেঙ্গু পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে।স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সারাদেশে যত মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে তার মধ্যে ৬০ ভাগই ঢাকার। এ পর্যন্ত ৫৭টি জেলায় ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে। সকলে সজাগ না হলে ডেঙ্গু পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারন করবে। সিটি করপোরেশনগুলোকে বেশি বেশি মশা নিধনের ওষুধ স্প্রে করার আহ্বান জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, বহুতল ভবনে ডেঙ্গু দেখা দিচ্ছে বেশি। সেখানে গ্যারেজ এবং ড্রেন থাকে। নির্মাণাধীন ভবনেও পানি জমে এডিস মশার জন্ম হয়।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. মো. জাহিদুল ইসলামের সই করা ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে  জানানো হয়, সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে যা চলতি বছর একদিনে ডেঙ্গুতে সর্বোচ্চ মৃত্যু। এ নিয়ে চলতি বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৩ জনে। নতুন করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আরও ৮৩৬ ডেঙ্গুরোগী, যা চলতি বছরে একদিনে সর্বোচ্চ।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মধ্যে ডেঙ্গুর উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা অন্যতম একটি ওয়ার্ড হলো বাড্ডা এলাকা। একদিন বৃষ্টি হলে এক সপ্তাহেও রাস্তাঘাটের পানি সরে না। এমনকি গত দুই মাসে এসব এলাকায় এডিস মশা নিধনে সিটি করপোরেশনের কোনো অভিযান পরিচালিত হয়নি বলেও জানান স্থানীয় এলাকাবাসী।ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যার দিক থেকে ঢাকা সবার ওপরে। এখন পর্যন্ত মোট ৬১ মৃত্যুর মধ্যে ৪৮টি ঢাকায়। এ ছাড়া চট্টগ্রামে ১১, বরিশাল ও ময়মনসিংহে ১ জন করে মারা গেছে। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ৯৮টি ওয়ার্ডে গত ১৮ থেকে ২৭ জুন পর্যন্ত বর্ষা মৌসুম পূর্ব জরিপ পরিচালনা করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ঢাকা উত্তরের ৪০টি এবং দক্ষিণের ৫৮টি ওয়ার্ডে পরিচালিত এ জরিপে দেখা গেছে, ঢাকার ৪৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ বহুতল ভবনে, ২১ দশমিক ৩১ শতাংশ সাধারণ বাসাবাড়িতে এবং ১৮ দশমিক ২১ শতাংশ নির্মাণাধীন ভবনে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেছে। জরিপে দুই সিটির...


Jul 08, 2023

জাতীয়

 দেশজুড়ে বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্ত  সংখ্যা

দেশজুড়ে বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্ত সংখ্যা

প্রতিদিনই বাড়ছে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত আর মৃত্যুর সংখ্যা। দেশজুড়ে বিরাজ করছে ডেঙ্গু আতঙ্ক। সেই সাথে ঈদুল আজহার ছুটি শেষে রোববার থেকে খুলছে দেশের সব স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ গণমাধ্যমকে এক নির্দেশনায় বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শিক্ষার্থীদের সুরক্ষায়  ডেঙ্গু রোধে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোকে ৫ দফা নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে, শনিবারের মধ্যে ছাত্রছাত্রীদের ক্লাস উপযোগী করে স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা প্রস্তুত করবেন দায়িত্বশীলরা।মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের এ সংক্রান্ত নির্দেশনায় বলা হয়, ‘’দেশের বিভিন্ন স্থানে ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দিয়েছে। বহু মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছেন ও হচ্ছেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠ ও ভবনগুলোর মাঝে পানি জমে থাকে এমন জায়গা, ফুলের টবে জমে থাকা পানি এডিস মশার উপযুক্ত প্রজনন কেন্দ্র। তাই ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে দেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটি শেষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলোর পর এসব ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হলো।‘’তিনি আরও বলেন- নির্দেশনা অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানোর লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের একজন শিক্ষকের নেতৃত্বে কর্মচারী, স্কাউটস, বিএনসিসি ও শিক্ষার্থী সমন্বয়ে এক বা একাধিক টিম গঠন করতে হবে। ওই টিম ডেঙ্গু প্রতিরোধ কার্যক্রম চালাবে।বিদ্যালয় ও এর আশপাশে স্বচ্ছ পানি জমার স্থান চিহ্নিত করে পরিষ্কার করবে, খোলা পাত্রে জমাট পানিতে ডেঙ্গু ডিম ছাড়ে, তাই বাথরুমের বদনা ও বালতি যাচাই করতে হবে। হাইকমোডে হারপিক ঢেলে ঢাকনা বন্ধ ও প্যানে হারপিক ঢেলে বস্তা বা অন্য কিছু দিয়ে মুখ বন্ধ রাখতে হবে, কোনো স্থানে জমাটবদ্ধ পানি থাকলে লার্ভিসাইড স্প্রে এবং পানি নিষ্কাশন করতে হবে।প্রসঙ্গত ২৫ জুন থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘ ছুটিতে পরিচ্ছন্নতার অভাবে খেলার মাঠ, আশপাশ এলাকা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভেতরে ডেঙ্গু মশার বংশ বিস্তারের শঙ্কা রয়েছে। কেননা বিগত বন্ধের দিনে বৃষ্টির স্বচ্ছ পানি জমে থাকার সম্ভাবনা থাকায় এ শঙ্কা আরও বাড়ছে।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে মোট ২ হাজার ১৬৫ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন। তাদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় ৭২ জন ও ৬৩৭ জন ঢাকা বিভাগের বাইরের।এ সময় একজন মারা গেছে।আর গত জানুয়ারি থেকে মারা গেছে ৬৫ জন। বর্তমানে ডেঙ্গু শুধু ঢাকা নয়,...


Jul 06, 2023

জাতীয়

আগারগাঁও-মতিঝিল রুটে মেট্রোরেলের পরীক্ষামূলক উদ্বোধনী শুক্রবার

আগারগাঁও-মতিঝিল রুটে মেট্রোরেলের পরীক্ষামূলক উদ্বোধনী শুক্রবার

পরীক্ষামূলক চলাচলের আগের প্রস্তুতি ঝালিয়ে নিতেই বুধবার মধ্যরাতে রাজধানীর আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত পাড়ি দিলো মেট্রোরেল।বৃহস্পতিবার (৬ জুলাই) ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের উপ-মহাব্যবস্থাপক নাজমুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, শুক্রবার (৭ জুলাই) পরীক্ষামূলকভাবে আগারগাঁও-মতিঝিল রুটে মেট্রোরেল চলাচল কাজের উদ্বোধন করবেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের । পরীক্ষামূলকভাবে শুক্রবার থেকে নিয়মিত মেট্রোরেল চলাচল করবে। উদ্বোধনী চলাচলে যেন কোনো সমস্যা না হয় সেজন্য মধ্যরাতে মেট্রোরেল চলাচল করেছে।এদিকে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের (লাইন-৬) অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক (ইলেকট্রিক্যাল, সিগন্যাল অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন অ্যান্ড ট্র্যাক) মো. জাকারিয়া জানান, গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর মেট্রোরেল উত্তরা-আগারগাঁও রুটে চলাচল শুরু করে। আর দীর্ঘ অপেক্ষার পর মেট্রোরেলের আগারগাঁও-মতিঝিল রুটে  দ্বিতীয় ধাপে যাত্রীপরিবহনের লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে অক্টোবরে।তিনি আরও বলেন, মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত মেট্রোরেলের এক কিলোমিটারের বেশি রুট বৃদ্ধি পেয়েছে। এ কাজ সম্পন্ন হতে সময় লাগবে। মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত দৈর্ঘ্য ১ দশমিক ১৬ কিলোমিটার। কমলাপুর রেলস্টেশনের সঙ্গে মেট্রোরেলের সংযোগ স্থাপনের জন্য প্রধানমন্ত্রী রুট বাড়ানোর নির্দেশনা দেন। এরই মধ্যে বাড়তি অংশে ভূমি অধিগ্রহণ, নির্মাণ এবং ‘ই অ্যান্ড এম সিস্টেম’ সংগ্রহ করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত চলছে এটি। পুরোদমে চালু হলে মেট্রোরেল ঘণ্টায় ৬০ হাজার ও দৈনিক পাঁচ লাখ যাত্রী পরিবহন করতে পারবে।...


Jul 05, 2023

জাতীয়

        দেশব্যাপী করোনা টিকা্দান কর্মসূচী শুরু

দেশব্যাপী করোনা টিকা্দান কর্মসূচী শুরু

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সারা দেশে একযোগে করোনার তৃতীয় এবং চতুর্থ ডোজের ৭ দিনব্যাপী বিশেষ টিকাদান ক্যাম্পেইন শুরু হয়েছে। সারাদেশে একযোগে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে এই ক্যাম্পেইন চলবে।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি (ইপিআই) থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান হয় যে, বুধবার (৫ জুলাই) দেশব্যাপী শুরু হওয়া এই বিশেষ ক্যাম্পেইন চলবে আগামী ১১ জুলাই পর্যন্ত।এতে বলা হয়, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রমের মাধ্যমে নিজেদের অধিক সুরক্ষিত করার লক্ষ্যে ১৮ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সি সব নাগরিককে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের তৃতীয় এবং চতুর্থ ডোজ দেওয়া হবে। এরই মধ্যে যারা কমপক্ষে চার মাস আগে দ্বিতীয় বা তৃতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন তাদের প্রাপ্যতা অনুযায়ী তৃতীয় বা চতুর্থ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।সারা দেশের স্থায়ী টিকাকেন্দ্রগুলোতে এ টিকা দেওয়া হবে। করোনার সম্মুখসারির যোদ্ধা, ষাটোর্ধ্ব নানা জটিল রোগে আক্রান্ত এবং অন্তঃসত্ত্বারা এ টিকা পাবেন। তৃতীয় ডোজ নেওয়ার চার মাস পর নেওয়া যাবে চতুর্থ ডোজ। ৬০ বছরের বেশি বয়সী ব্যক্তি, যাঁরা ইতিমধ্যে তৃতীয় ডোজ নিয়েছেন, তাঁদের এ কর্মসূচির আওতায় টিকা দেওয়া হবে।ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের এক গবেষণায় দেখা গেছে, কোভিড-১৯ টিকার চতুর্থ ডোজ নিরাপদ। এই ডোজ অ্যান্টিবডির ঘনত্ব এবং প্রতিরোধক্ষমতাকে যথেষ্ট বৃদ্ধি করে। গবেষণায় এখন পর্যন্ত চতুর্থ ডোজের ভ্যাকসিন-সম্পর্কিত গুরুতর প্রতিকূল পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ইনজেকশনের জায়গায় ব্যথা  ছিল।  এছাড়াও চলমান কোভিড ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম হিসেবে যেসব ১৮ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সী নাগরিক এখনও কোভিড ভ্যাকসিনের প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেননি তারাও কোভিড ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে পারবেন বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি (ইপিআই) থেকে জানানো হয়েছে, টিকার এই বিশেষ ক্যাম্পেইনের পাশাপাশি ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী যেসব শিশু এখনও ১ম বা ২য় ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেনি তাদেরও নির্ধারিত কেন্দ্রে প্রাপ্যতা অনুসারে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।কোভিড ভ্যাকসিন বিষয়ে যে কোনো ধরনের সঠিক তথ্যের জন্য ১৬২৬৩ হেল্পলাইনে যোগাযোগ করার জন্য বলা হয়েছে। চলমান টিকাদান বিশেষ এই ক্যাম্পেইনে- যারা ভ্যাকসিন নিতে পারেননি, তাদেরকে ভ্যাকসিন নিয়ে নিজে সুরক্ষিত থাকার পাশাপাশি অন্যকেও সুরক্ষিত রাখার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।...


Jul 04, 2023

জাতীয়

ঢাকা-১৭ উপ-নির্বাচনে নিরপেক্ষতা প্রমানে পুলিশের অঙ্গিকার - ডিএমপি কমিশনার

ঢাকা-১৭ উপ-নির্বাচনে নিরপেক্ষতা প্রমানে পুলিশের অঙ্গিকার - ডিএমপি কমিশনার

ঢাকা-১৭ আসনের উপ-নির্বাচনে পুলিশের শতভাগ নিরপেক্ষতা প্রমানে সুষ্ঠ ভোটে যা যা করণীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক।মঙ্গলবার (৪ জুলাই) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ঢাকা-১৭ আসনের উপ-নির্বাচনে মোতায়েনের জন্য যথেষ্ট ফোর্স রয়েছে। ‘’আমরা আইনশৃঙ্খলা দেখি। সব এলাকায় সমান গুরুত্ব দেওয়া হবে। কোথায় ঝুঁকি বেশি, কোথায় ঝুঁকি কম আমরা বিবেচনা করবো,  সে হিসাবে ফোর্স মোতায়েন কোথাও কম-বেশি হবে। ঢাকার উপ-নির্বাচন নিয়ে কমিশন যে নির্দেশনা দিয়েছে, সুষ্ঠ ভোটে যা যা করণীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নির্বাচনে পুলিশের শতভাগ নিরপেক্ষতা না থাকলে ডিএমপি কমিশনার হিসেবে নাকে খত দিয়ে চলে যাবো।‘’তিনি আরও বলেন, ডিএমপির সক্ষমতা রয়েছে, এ ছোট একটি  উপ-নির্বাচনে ইসির চাহিদা মোতাবেক অবাধ, সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে যা যা করণীয়, সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইসি যে ধরনের সুষ্ঠ, স্বচ্ছ নির্বাচন করতে চাচ্ছে, সে ধরনের সহযোগিতা পুলিশের তরফ থেকে সব সময় থাকবে।এসময় গোলাম ফারুক বলেন, আমরা আইনশৃঙ্খলা দেখি। ভোট নির্ভর করে জনগণের উপর, প্রিজাইডিং কর্মকর্তা পোলিং অফিসারের উপরে। আমাদের কাজ হলো কেন্দ্রের পুরো আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা। যাতে ভোটারারা নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারেন। নিরপেক্ষতা প্রমাণে পুলিশের শতভাগ উদ্যোগ থাকবে।‘’আমাদের নিরপেক্ষতা প্রমাণের জায়গা শতভাগ থাকবে বলে ডিএম পি কমিশনার জানিয়ে  বলেন, কারা বিশ্বাস করে বা করে না? আমি একশ ভাগ গ্যারান্টি দিলাম। ১৭ জুলাইয়ের নির্বাচন দেখেন, আমাদের নিরপেক্ষতার প্রমাণ পান কি না। যদি না পান তখন বলবেন।‘’এসময় রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল সভাপতিত্ব করেন। সভায় অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার, ইসির ,পুলিশ সহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।...


Jul 03, 2023

জাতীয়

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রতা সাধন

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রতা সাধন

চলমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের প্রেক্ষাপটে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রতা সাধনের লক্ষ্যে খরচের লাগাম টানার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।সব মন্ত্রণালয়,বিভাগ,অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং আওতাধী অধিদফতর,পরিদফতর,দফতর, স্বায়ত্তশাসিত,আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা, পাবলিক সেক্টর করপোরেশন, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে বরাদ্দ করা অর্থ ব্যয়ে সরকার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছে।রবিবার (২ জুলাই) অর্থ বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি পরিপত্র জারি করে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ। এতে বেশকিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, আবাসিক এবং অনাবাসিক খাতে কোনো অর্থ ব্যয় করতে পারবে না সরকারি কোনো প্রতিষ্ঠান। এমনকি গাড়িও কিনতে পারবে না। তবে কোনো গাড়ির আয়ুষ্কাল ১০ বছর পার হলে প্রয়োজনে তা প্রতিস্থাপন করা যাবে। তবে এ জন্য আগেই অর্থ বিভাগের অনুমতি নিতে হবে।এতে আরও বলা হয়, চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের আওতায় সব প্রকার বৈদেশিক ভ্রমণ, ওয়ার্কশপ ও সেমিনারে অংশগ্রহণ বন্ধ থাকবে। তবে অত্যাবশ্যকীয় বিবেচনায় কিছু ক্ষেত্রে সীমিত আকারে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিয়ে বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ থাকবে। কোনও রকম ভূমি অধিগ্রহণ করা যাবে না অর্থাৎ বার্ষিক উন্নয়ন বাজেটে বরাদ্দ থাকলেও নতুন কোনও প্রকল্প হাতে নিতে পারবে না সরকার। কেবলমাত্র পুরনো প্রকল্প শেষ করা সম্ভব হবে। আবাসিক ভবন এবং অন্যান্য ভবন ও স্থাপনা খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় বন্ধ থাকবে।একইভাবে বিদ্যুৎখাতে বরাদ্দ অর্থের অন্তত ২৫ ভাগ সাশ্রয় করতে হবে। এমনকি জ্বালানি তেলেও সরকার ২০ ভাগ সাশ্রয় করার নির্দেশনা জারি করেছে। বিদ্যুৎ খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৭৫ শতাংশ ব্যয় করতে হবে। পেট্রোল, অয়েল ও লুব্রিকেন্ট এবং গ্যাস ও জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের আওতায় এসব খাতের বরাদ্দ করা অর্থ অন্য কোনো খাতে এবং অন্য কোনো খাত থেকে এসব খাতে পুনঃউপযোজন করা যাবে না বলেও পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।            ...


Jun 19, 2023

জাতীয়

টানা পাঁচ দিন ঈদের ছুটি  নির্বাহী আদেশে ২৭ জুন ছুটি ঘোষণা

টানা পাঁচ দিন ঈদের ছুটি নির্বাহী আদেশে ২৭ জুন ছুটি ঘোষণা

আসন্ন ঈদুল আজহায় ঈদ ভ্রমণের সুবিধার কথা বিবেচনা করে মন্ত্রিসভার বৈঠকে  ২৭ জুন ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে একদিনের ছুটি ঘোষণার এই সিদ্ধান্ত হয়। আগামী ২৯ জুন সম্ভাব্য ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে ২৮, ২৯ ও ৩০ জুন ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এবার ঈদের ছুটিতে আরও একটি দিন যোগ করে ২৭ জুনকেও ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। আর ১ জুলাই সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় টানা পাঁচ দিন ঈদের ছুটি পাচ্ছেন সরকারি কর্মচারীরা।ঈদ-উল-আযহা, সারা বিশ্বের মুসলমানদের পালন করা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইসলামী একটি দিন। মক্কার বার্ষিক হজ যাত্রা, ঈদ-উল-আযহার পশু করবানির মাধ্যমে হজের সমাপ্তি, যা ইসলামের মূল স্তম্ভের একটি।  আল্লাহর আনুগত্যের প্রমান, ইসলামের বিভিন্ন বর্ণনা অনুযায়ী, মহান আল্লাহ তা’আলা ইসলামের রাসুল হযরত ইব্রাহিম(আঃ) কে স্বপ্নযোগে তাঁর সবচেয়ে প্রিয় বস্তুটি কুরবানি করার নির্দেশ দেন “তুমি তোমার প্রিয় বস্তু আল্লাহর নামে কোরবানি কর”। ইব্রাহীম স্বপ্নে এ আদেশ পেয়ে ১০টি উট কোরবানি করলেন। পুনরায় তিনি একই স্বপ্ন দেখলেন। ইব্রাহীম আবার ১০০টি উট কোরবানি করেন। এরপরেও তিনি একই স্বপ্ন দেখে ভাবলেন, আমার কাছে তো এ মুহূর্তে প্রিয় পুত্র ইসমাইল(আ.) ছাড়া আর কোনো প্রিয় বস্তু নেই। তখন তিনি প্রিয় পুত্রকে করবান করার জন্য নবী ইব্রাহিম (আ.) (খ্রিস্টান এবং ইহুদি ধর্মে আব্রাহাম) আরাফাতের ময়দানের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন।   যে  ত্যাগ ও ইচ্ছুকতা তারই স্মরণ।  যদিও ধর্মীয় বর্ণনা অনুসারে, সর্বশক্তিমান আল্লাহ শেষ মুহুর্তে হস্তক্ষেপ করেছিলেন এই উৎসবটি সর্বশক্তিমান এবং ইব্রাহিমের পুত্রের পরিবর্তে কোরবানি করার জন্য একটি মেষ প্রদান করেছিলেন।  ঈদ-উল-আযহার এই দিনে সাধারণত ঈদগাও, মসজিদে একটি বিশেষ ঈদের নামাজের  মাধ্যমে শুরু হয় কোরবানির কার্যক্রম। যেখানে একটি গবাদি পশু, সাধারণত একটি ভেড়া বা ছাগল, জবাই করা হয়। এরপর এই কোরবানির মাংস তিন ভাগে বিতরণ করা হয়, এক ভাগ পরিবারের জন্য, এক ভাগ আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুদের জন্য এবং এক ভাগ গরীব-দুঃখী মানুষদের জন্য।   ...


Jun 14, 2023

জাতীয়

চাহিদার চেয়ে বেশি রয়েছে দেশে উৎপাদিত কোরবানিযোগ্য পশু - প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

চাহিদার চেয়ে বেশি রয়েছে দেশে উৎপাদিত কোরবানিযোগ্য পশু - প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

আসন্ন ঈদুল আজহায় কোরবানির জন্য দেশে চাহিদার চেয়ে বেশি কোরবানিযোগ্য পশু রয়েছে, নেয়া হচ্ছে সীমান্তপথে অবৈধ গবাদিপশু বন্ধের উদ্যোগ বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।বুধবার (১৪ জুন) আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে কোরবানির পশুর চাহিদা নিরূপণ, সরবরাহ এবং দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে কোরবানির পশুর অবাধ পরিবহন নিশ্চিত করতে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী।এসময় মন্ত্রী বলেন, এবার এক কোটি তিন লাখ ৯৪ হাজার ৭৩৯টি কোরবানির পশুর চাহিদা রয়েছে। আর প্রস্তুতি রয়েছে এক কোটি ২৫ লাখ ৩৬ হাজার ৩৩৩টির। চাহিদার চেয়ে ২১ লাখ ৪১ হাজার ৫৯৪টি পশু উদ্বৃত্ত রয়েছে।চলতি বছর কোরবানিযোগ্য মোট গবাদিপশুর সংখ্যা ১ কোটি ২৫ লাখ ৩৬ হাজার ৩৩৩। যা গত বছরের চেয়ে ৪ লাখ ১১ হাজার ৯৪৪টি বেশি। এ বছর কোরবানিযোগ্য গবাদিপশুর মধ্যে ৪৮ লাখ ৪৩ হাজার ৭৫২টি গরু-মহিষ, ৭৬ লাখ ৯০ হাজার ছাগল-ভেড়া এবং ২ হাজার ৫৮১টি অন্যান্য প্রজাতির গবাদিপশু।“অতীতে শুধু হাটে কোরবানির পশু বিক্রি করা হত। এখন থেকে কোরবানির পশু রস্তায়ও বিক্রি করতে পারবে, বাড়িতেও বিক্রি করতে পারবে, বাজারে বিক্রি করতে চান বিক্রি করতে পারবেন। যদি কাউকে বিক্রিতে কোনো ডিস্টার্ব করা হয়, ল উইল টেক ইট ওন কোর্স। যে যেখান থেকে বিক্রি করতে চায় পারবে। কারণ বাজারে অনেক সময় মনোপলি ব্যবসা করার জন্য ইজারাদার সংকট সৃষ্টি করে রাখে। এজন্য বিক্রি আমরা ওপেন করে দিয়েছি।”মন্ত্রী আরও বলেন, গত চার-পাঁচ বছরের মতো এবারও দেশে উৎপাদিত গবাদিপশু দিয়েই কোরবানির চাহিদা মেটানো সম্ভব হবে। বিদেশ থেকে পশু আমদানির কোনও প্রয়োজন নেই। পাশের দেশ থেকে সীমান্তপথে যাতে অবৈধভাবে গবাদিপশু আসতে না পারে, সে জন্য কঠোর নজরদারি করা হচ্ছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে ইতোমধ্যে পত্র দেওয়া হয়েছে।দেশে কোরবানির পশুর কোনও সংকট নেই, এবার ঢাকা বিভাগে ৮ লাখ ৯৫ হাজার ৪৫৪টি, চট্টগ্রাম বিভাগে ২০ লাখ ৫৩ হাজার ১২৮টি, রাজশাহী বিভাগে ৪৫ লাখ ১১ হাজার ৬১৪টি, খুলনা বিভাগে ১৫ লাখ ১১ হাজার ৭০৮টি, বরিশাল বিভাগে ৪ লাখ ৯৩ হাজার ২০৬টি, সিলেট বিভাগে...


Jun 03, 2023

জাতীয়

ভারতে ট্রেন দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি সহ বহু হতাহত

ভারতে ট্রেন দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি সহ বহু হতাহত

ভারতে উড়িষ্যার বালেশ্বরে দুর্ঘটনার কবলে পড়া ট্রেনে মোট কতজন বাংলাদেশী ছিল  তা জানা না গেলেও অন্তত ১৫ বাংলাদেশি যাত্রীকে দুর্ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।বাংলাদেশের উপ-দূতাবাসের তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেনটিতে কতজন বাংলাদেশি ছিলেন, তাদের কী অবস্থা তা জানতে ঘটনাস্থল উড়িষ্যার পথে রওয়ানা হয়েছে । অনেকেই  নিকটাত্মীয়দের খোঁজখবর নিতে শুরু করায়, তাদের সুবিধার্থে একটি হটলাইন চালু করেছে কলকাতাস্থ বাংলাদেশের উপ-দূতাবাস।উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশের বহু মানুষ চিকিৎসার জন্য ভারতে যান। তাদের কেউ কেউ চিকিৎসা করান কলকাতায়, অনেকে চলে যান চেন্নাই-বেঙ্গালুরুতে। এ ধরনের বাংলাদেশি ভ্রমণকারীরা সাধারণত করমণ্ডল এক্সপ্রেসে যাতায়াত করেন। ফলে ট্রেনটি দুর্ঘটনায় পতিত হওয়ার খবরে উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশি নিকটাত্মীয়দে মধ্যে।শুক্রবার সন্ধ্যায় ভয়াবহ দুর্ঘটনার সাক্ষী বাংলাদেশের করমণ্ডল এক্সপ্রেসের যাত্রী ময়মনসিংহের বাসিন্দা মিনাজ উদ্দিন পশ্চিমবঙ্গ প্রতিনিধি মাধ্যমে জানান, এত বড় ট্রেন দুর্ঘটনা আগে কখনো দেখিনি। আমাদের আগের কামরা পুরো দুমড়ে-মুচড়ে গেছে। সেখানে যেসব বাঙালি ছিলেন, তাদের কাউকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।পশ্চিমবঙ্গ থেকে পাওয়া তথ্য মতে, দুই বাংলাদেশি নাগরিকের সন্ধান পাওয়া গেছে। তারাও চিকিৎসার জন্য পশ্চিমবঙ্গ থেকে চেন্নাই রওয়ানা হয়েছিলেন। দুর্ঘটনায় দুজনেই মারাত্মকভাবে আহত হন। তাদের উদ্ধার করে উড়িষ্যার বালেশ্বরের ফকির মোহন মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়। পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কটকের শ্রীরাম চন্দ্র ভঞ্জ মেডিকেল কলেজে অ্যান্ড হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। দুর্ঘটনায় আহত দুই বাংলাদেশির শরীরের নিচের অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, ত্বকের অবস্থা ভালো নয়। তাদের নাম-পরিচয় এখনো সঠিকভাবে জানা যায়নি। তবে তাদের একজন এতটুকু বলতে পেরেছেন, তারা দুজনেই বাংলাদেশের বাসিন্দা। যদিও উড়িষ্যার রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এখনো এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য জানানো হয়নি।এদিকে , টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করমন্ডল এক্সপ্রেস ট্রেনটি দুর্ঘটনার আগে ভুল লাইনে প্রবেশ করে।রেলওয়ের কর্মকর্তারা ও পুলিশ জানিয়েছে, করমন্ডল এক্সপ্রেস চেন্নাইয়ের দিকে মূল লাইনে যাওয়ার পরিবর্তে লুপ লাইনে প্রবেশ করে একটি স্থির পণ্যবাহী ট্রেনকে ধাক্কা দেয়। এটা সংকেতজনিত ভুল বলেই বিবেচনা করা হচ্ছে।ভারতের উড়িষ্যায় ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৬১ জনের  মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে বহু। মৃত্যুর...


May 29, 2023

জাতীয়

পাঁচ মাসে সারা দেশে ডেঙ্গু আক্রান্তর সংখ্যা প্রায় কয়েক গুন

পাঁচ মাসে সারা দেশে ডেঙ্গু আক্রান্তর সংখ্যা প্রায় কয়েক গুন

গত জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত  গেলো বছরের একই সময়ের তুলনায় এ বছর ডেঙ্গু আক্রান্তর সংখ্যা প্রায় কয়েক গুন।সোমবার (২৯ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের দেওয়া তথ্য মতে সারা দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে বর্তমানে ২২৬ জন রোগী ভর্তি আছে। এর মধ্যে ঢাকাতেই ১৯৮ জন। বাকি ২৮ জন ঢাকার বাইরে অন্য বিভাগে। গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্তদের মধ্যে ৫৮ জন ঢাকার এবং ঢাকার বাইরে ১৪ জন।বিগত পাঁচ মাসে সারা দেশে ১৭০৪ মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে  হাসপাতালে আসেন। এই সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৩ জন।এদিকে সোমবার (২৯ মে) সচিবালয়ে করোনা টিকা নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন। দেশে এবং আশপাশের দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পেয়েছে। এ বিষয়ে আমাদের অধিদপ্তর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। জানুয়ারি থেকে ২৮ মে পর্যন্ত ১ হাজার ৭০৪ জন ডেঙ্গুরোগী পেয়েছি। এসময়ে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আমরা যদি গত বছরের তুলনা করি, এবছর রোগীর সংখ্যা প্রায় পাঁচগুণ। অর্থাৎ অনেক রোগী বৃদ্ধি পেয়েছে।মন্ত্রী আরও জানান, হাসপাতালগুলোকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ডেঙ্গু রোগীদের জন্য। সব বাহিনীসহ সেনাবাহিনীও ডেঙ্গু নিয়ে সতর্কতার জন্য কাজ করছে। ডাক্তার-নার্সদের ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যে ডেঙ্গু সার্ভে, সেটি চলমান। রিপোর্ট দুই সিটি করপোরেশনকে দেয়া হয়েছে। ডেঙ্গুরোগীদের জন্য হাসপাতালে আলাদা ওয়ার্ড এবং আলাদা কর্নার তৈরি করা হয়েছে।স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, জনগণকে সচেতন করার জন্য আমরা বিভিন্ন মহলকে যুক্ত করেছি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক আছেন, ছাত্রছাত্রী আছেন, তাদের মাধ্যমে এটা প্রচার করা হচ্ছে। আপনাদের মাধ্যমে আমরা জনগণকে অবহিত করতে চাই যে, আপনারা ডেঙ্গু প্রতিরোধে ব্যবস্থা নিন। মানে বাসার আশপাশের আঙিনা পরিষ্কার রাখুন, নিজের ঘর স্প্রে করুন, আশপাশে যদি জঙ্গল থাকে সেখানে স্প্রে করুন এবং পানি বা যদি অন্যকিছু জমে থাকে সেগুলো সরিয়ে ফেলুন। এ কাজগুলো আমাদের নিজেদেরই করতে হবে। কেউ অসুস্থ হলে হাসপাতালে এসে তাড়াতাড়ি চিকিৎসা নেবেন। সময়মতো চিকিৎসা নিলে প্রায় সবাই ভালো হয়ে যাচ্ছেন। ...


May 18, 2023

জাতীয়

জুলাই মাসে পরীক্ষামূলক চালু হচ্ছে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল

জুলাই মাসে পরীক্ষামূলক চালু হচ্ছে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল

ঢাকার উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত পর্যন্ত মেট্রোরেল আগামী জুলাই মাসে পরীক্ষামূলক চালু সহ ডিসেম্বরে আগেই চলাচলের জন্য খুলে দিতে চায় ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড -ডিএমটিসিএল।বৃহস্পতিবার ঢাকায় প্রবাসী কল্যাণ ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমটিসিএল এমডি এম এ এন ছিদ্দিক বলেন, প্ল্যাটফর্মে এক্সিট-এন্ট্রির সহ বৈদ্যুতিক কাজ চলছে। ‘সিপি সেভেন’ যেটিকে বলি, সেটার কাজ চলছে।“স্টেশনভেদে মতিঝিল পর্যন্ত রুটের ৯০ থেকে ৯৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আমাদের যে দ্বিতীয় অংশ আগারগাঁও থেকে মতিঝিল, সেখানে আমাদের কাজের অগ্রগতি ৯০ শতাংশের ওপরে। জুলাই মাস থেকে আগারগাঁও থেকে মতিঝিল রুটে পারফরম্যান্স টেস্ট ও ট্রায়াল রান শুরু হয়ে যাবে।”তিনি আরও বলেন, জনগণের চাহিদা বিবেচনায় আগেভাগেই মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জনগণ চাইছে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল চলুক। “আমাদের টার্গেট ছিল ডিসেম্বরের মধ্যে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল চালু করা। কিন্তু আমরা চাইছি আরেকটু আর্লি কমিশনিং করা যায় কি না সেটি আমরা বিবেচনা করছি।সেক্ষেত্রে সবগুলো স্টেশন যদি একসঙ্গে চালু করা নাও যায়, তাহলে প্রথম অংশটা যেভাবে আমরা পর্যায়ক্রমে চালু করেছিলাম, সেটা মাথায় রেখে আমরা সেখানে আর্লি কমিশনিং করতে পারব। ট্রেনগুলো জুলাই থেকে সেখানে টেস্ট রান শুরু করুক। এরপর আমরা তারিখ জানাতে পারব বলেও জানান এম ডি।মতিঝিল পর্যন্ত এই ট্রেন যোগাযোগ চালু হলে যাত্রীও পর্যাপ্ত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন এই কর্মকর্তা আর বলেন, “এন্ডিং স্টেশন হিসেবে মতিঝিল ঠিক থাকছে। এরপর টেস্ট রান ও ওসিসির পরিস্থিতি বিবেচনা করে জুলাই থেকে যখন টেস্ট রান শুরু হবে, তখন বুঝতে পারব কোন স্টেশনগুলো খোলা থাকবে।”সংবাদ সম্মেলনে ঢাকার উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেল চলাচলের সময় আরও ছয় ঘণ্টা বাড়ানোর ঘোষণা দেন এম এ এন ছিদ্দিক।তিনি বলেন, “আগামী ৩১ মে থেকে মেট্রোরেল চলবে সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। সেই সাথে মঙ্গলবারের বদলে প্রতি সপ্তাহের শুক্রবার বন্ধ থাকবে মেট্রো রেল চলাচল।”এসময় এমআরটি লাইন ৬ এর বর্ধিতাংশে কমলাপুর পর্যন্ত কাজের অগ্রগতির তথ্য দিয়ে  ডিএমটিসিএল এমডি বলেন, “আমাদের মাটি পরীক্ষা শেষ। আমাদের এখন পাইলিংয়ের কাজ চলছে, পাইল ক্যাপের কাজ চলছে। আমাদের ১৭৬টি পাইল করতে হবে, এর মধ্যে...


May 17, 2023

জাতীয়

ডেঙ্গুর প্রকোপ রোধে ডিএনসিসির  সচেতনতামুলক কার্যক্রম শুরু

ডেঙ্গুর প্রকোপ রোধে ডিএনসিসির সচেতনতামুলক কার্যক্রম শুরু

ডেঙ্গুর প্রকোপ রোধে মানুষের মধ্যে সচেতনা বাড়াতে বিএনসিসি ও স্কাউট দল সহ ডিএনসিসির কাউন্সিলর ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে মাঠে নেমেছেন ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।বুধবার (১৭ মে) দুপুরে ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে মিরপুর সনি সিনেমা হল এলাকায় মশকমুক্ত শহর গড়ে তুলতে মৌসুমের শুরুতে মশা নিয়ন্ত্রণে জনগণকে সচেতন করতে সচেতনতামূলক এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।সভায় ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ডেঙ্গুর প্রকোপ রোধে জনগণকে সচেতন ও সম্পৃক্ত করতে আমরা ব্যাপক প্রচারণা চালানোর সিদ্বান্ত নিয়েছি। জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে পারলে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হবে। বিভিন্ন অঞ্চলে ভাগ করে এই সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।আতিক বলেন, আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। আজ বাঙালির জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি দিন। সে কারণে এই দিনটিকে কেন্দ্র করে বিএনসিসি ও স্কাউট সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে আমরা মশা নিয়ন্ত্রণে জনগণকে সচেতন করতে এ সচেতনতামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছি।ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর এবং স্কাউটস সদস্যরা আমাদের এই সচেতনতা কার্যক্রমে যুক্ত হয়েছেন। এজন্য তাদেরকে আলাদাভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি এলাকাকে ৪০০ স্কয়ার মিটার আলাদা করে এবং গ্রিডে ভাগ করে এডিস মশা নিধনে সচেতনতা ও দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হবে। ডিএনসিসির প্রতিটি এলাকায় আলাদা সচেতনতা কার্যক্রম চালানো হবে। সব স্থানে মশার ওষুধ ঠিকমতো ছিটানো হচ্ছে কি না, কোথায় অভিযান জরুরি প্রয়োজন তা জানাবে। এছাড়া তারা যে শুধু মশার উৎস দেখবে তা না, তারা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা, বৃক্ষরোপণ ইত্যাদি বিষয়েও অ্যাপের মাধ্যমে আমাদের  তথ্য তারা জানতে এবং জানাতে পারবে। আমরা সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।মেয়র আতিক আরও বলেন, আমরা দুটি জায়গায় ফোকাস করছি। একটি সচেতনতা এবং অপরটি ওষুধ প্রয়োগ। এজন্য ডিএনসিসি এলাকায় বসবাসরত নগরবাসীকে স্কাউটস এবং ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের সদস্যদের সহযোগিতা করার আহ্বান জানাচ্ছি। দশটি অঞ্চল চিহ্নিত করে আলাদা সচেতনতা কার্যক্রম চালানোর জন্য আলাদা টিম গঠন করা হয়েছে। তারাও একইসাথে মশা নিয়ন্ত্রণের সচেতনতায় কাজ করবে। সবার সম্মিলিত সহযোগিতায় আমরা একটি মশকমুক্ত শহর গড়ে তুলতে সক্ষম হবো বলেও জানান।...


May 11, 2023

জাতীয়

সুপার সাইক্লোনে রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড় মোখা

সুপার সাইক্লোনে রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড় মোখা

আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া গভীর নিম্নচাপ ঘনীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড় মোখা সুপার সাইক্লোনে রূপ নিতে পারে।আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক মো. আজিজুর রহমান বৃহস্পতিবার (১১ মে) সকালে ঘূর্ণিঝড়  মোখা’র গতিপথ নিয়ে বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোখা  এখন পর্যন্ত ভারতের উড়িষ্যা, পশ্চিমবঙ্গের দিকে থাকলেও শুক্রবার সকালে এটি বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের দিকে বাঁক নেবে। এদিন সকালে ঘূর্ণিঝড়টি ‘প্রবল’ এবং একই দিন সন্ধ্যায় ‘অতি প্রবল’ হবে।এছাড়া, শনিবার (১৩ মে) ঘূর্ণিঝড়টি ‘পিক অবস্থায়’ থাকবে বলে জানান তিনি। শনিবারের পর থেকে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে এবং তখন চলমান তাপপ্রবাহ কমে আসবে বলেও জানান আবহাওয়া অধিদফতরের এ পরিচালক।আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন বলেন, এর প্রভাব এখনও বাংলাদেশের উপকূলে পড়তে শুরু করেনি। তবে শুক্র ও শনিবার এই ঝড়ের প্রভাবে কোথাও কোথাও বৃষ্টি শুরু হতে পারে। এটি এখন ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। এখন গতিবেগ কম আছে। এটি আরও ঘনীভূত হলে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। তখন এর গতিবেগ আরও অনেক বেড়ে যাবে। এখন এটি বাংলাদেশ থেকে ১৫০০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছে। ১২ মে উত্তর-পূর্ব দিকে বাঁক নেবে। কক্সবাজার ও মিয়ানমারে আঘাত হানতে পারে। এটির গতি হবে ১৮০ থেকে ২২০ কিলোমিটার। ঘূর্ণিঝড়টি সুপার সাইক্লোনে রূপ নিতে পারে। পূর্বাভাস অনুযায়ী সমুদ্রে এখন ২ নম্বর সতর্ক বার্তা দেওয়া হয়েছে। এটির মুভমেন্ট অনুযায়ী সর্তক বার্তাও বাড়তে থাকবে। ৯১-এর প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ের ছায়া দেখা যাচ্ছে মোখায়।’এর আগে ,দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান বলেন, “কয়দিন আগে তৈরি হওয়া নিম্নচাপ  ঘূর্ণিঝড় মোখা  ১৩ মে রাত থেকে ১৪ মে সকালের দিকে দেশের কক্সবাজার উপকূলে আঘাত হানতে পারে। গতিপথ কক্সবাজার আর মিয়ানমারের মাঝখান দিয়ে এটি উপকূল অতিক্রম করতে পারে। ঝড়ের সম্ভাব্য গতিপথে সেন্টমার্টিনকেও দেখা যাচ্ছে। ফলে প্রবল ঘূর্ণিঝড় হলে সবার আগে এটি আঘাত হানবে সেন্টমার্টিনেই।ঘূর্ণিঝড় মোখা মোকাবিলায় সরকারের প্রস্তুতি তুলে ধরে দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এরইমধ্যে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের দিকনির্দেশনা দিয়েছি। কক্সবাজারের আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত করা হয়েছে। যেহেতু রোহিঙ্গারা টেকনাফে অবস্থান করছে সেহেতু তাদের বিষয়টাও দেখতে হচ্ছে। আগাম সতর্ক বার্তা প্রচারের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের সময় সেখানকার মানুষের জন্য ১৪ টন শুকনো খাবার,...


May 07, 2023

জাতীয়

রাজধানী ঢাকাসহ বড় শহরগুলোতে বাড়ছে ডেঙ্গুর প্রকোপ

রাজধানী ঢাকাসহ বড় শহরগুলোতে বাড়ছে ডেঙ্গুর প্রকোপ

জলবায়ু পরিবর্তন বাংলাদেশে  বাড়তে শুরু করেছে ডেঙ্গু সংক্রমণের প্রকোপ।  ডেঙ্গু সংক্রমণ থেকে মুক্ত থাকতে সকলকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক ।  রোববার (৭ মে) রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে বিশ্ব টিকাদান সপ্তাহের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক একথা বলেন।স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে মশার কামড় থেকে মুক্ত থাকতে হবে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সতর্ক হতে হবে। আশপাশের পরিবেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। বাসা বাড়ির ছাদ, আঙিনায় যেন পানি জমে না থাকে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।‘বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা এক গবেষণায় বলা হয়, আর্দ্রতা কমে আসার পাশাপাশি তাপমাত্রা ও বৃষ্টিপাতের মাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভবিষ্যতে দেশের রাজধানীতে ডেঙ্গুর প্রকোপ আরও বাড়তে পারে। ১৯৯০ সালের পর থেকে পুরো বিশ্বেই এডিস মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গুর প্রকোপ প্রতি এক দশকে দ্বিগুণ হচ্ছে।বাংলাদেশে ডেঙ্গুর বড় প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছিল ২০১৯ সালে। ওই বছরের তথ্য তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়, সারা দেশে যত মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিল, তার অর্ধেকই ঢাকায়। আর ঢাকায় ডেঙ্গুতে মৃত্যুর হার ছিল সারা দেশে মোট মৃত্যুর ৭৭ শতাংশ। ওই বছরের ফেব্রুয়ারিতে ঢাকায় ভারী বর্ষণের সঙ্গে পরের মাসগুলোর অনুকূল তাপমাত্রা আর আর্দ্রতা ডেঙ্গুর ব্যাপক বিস্তারে ভূমিকা রেখেছিল।আবহাওয়া  বদলের কারনে  ঢাকা, চট্টগ্রামের মতো বড় শহরগুলোতে বর্ষাকালে ডেঙ্গুর মতো বাহকনির্ভর রোগের প্রকোপ আরও বাড়ার সম্ভবনা রয়েছে।সরকারি প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছর ১ জানুয়ারি থেকে ৬ মে পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মোট এক হাজার ৮০ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় ভর্তি হয়েছেন ৫৮৮ জন। আর সংশ্লিষ্ট জেলায় ভর্তি হয়েছেন ৪৯২ জন।বাংলাদেশে এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে শনিবার (৬ মে) সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জন ডেঙ্গু সংক্রমিত হয়েছেন।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন যে, নতুন আক্রান্তদের ১৩ জন ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। আর এক জন ভর্তি হয়েছেন সংশ্লিষ্ট জেলার হাসপাতালে। বাংলাদেশে বর্তমানে ডেঙ্গু আক্রান্ত ৮৫ জন বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এর মধ্যে ৬৮ জন ঢাকায় এবং ১৭ জন সংশ্লিষ্ট জেলার হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।এছাড়া,...


May 06, 2023

জাতীয়

জাল সনদ ও নম্বরপত্র তৈরির অভিযোগে নামি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ও স্ত্রী গ্রেপ্তার

জাল সনদ ও নম্বরপত্র তৈরির অভিযোগে নামি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ও স্ত্রী গ্রেপ্তার

জাল সার্টিফিকেট মার্কশিট তৈরি করে লাখ লাখ টাকায় হাতিয়ে নেয়া নামি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ও তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার।রাজধানীর লালবাগ ও রামপুরা  এলাকায় অভিযান চালিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের জাল সনদ ও নম্বরপত্র তৈরি চক্রের চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এ সময় জাল সনদ, নম্বরপত্র এবং এগুলো তৈরির সরঞ্জাম জব্দ করা হয়েছে।প্রকৌশলী জিয়াউর রহমান, তার স্ত্রী নুরুন্নাহার মিতু, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ইয়াসিন আলী ও দারুল ইহসান ইউনিভার্সিটির পরিচালক বুলবুল আহমেদ বিপু বাসার ভেতরেই এসব জাল সার্টিফিকেট মার্কশিট তৈরি করে লাখ লাখ টাকায় বিক্রি করতেন।শুক্রবার (৫ মে) ডিবি’র লালবাগ বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান বলেন, অনেকদিন ধরেই টাকার বিনিময়ে চলমান ও বন্ধ হয়ে যাওয়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েশন এবং পোস্ট গ্রাজুয়েশন, বিভিন্ন বোর্ডের সেকেন্ডারি, হায়ার সেকেন্ডারি সার্টিফিকেট ও মার্কশিট বিক্রি করে আসছিল চক্রটি। এসময় রামপুরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি নামি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ও তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়।প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, তারা বোর্ড-বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সরবরাহ করা মূল কাগজ দিয়েই মার্কশিট ও সার্টিফিকেট তৈরি করে কর্মকর্তাদের মাধ্যমে অনলাইনে অন্তর্ভুক্ত করত, যাতে অনলাইন ভেরিফিকেশনে সত্যতা পাওয়া যায়।শুক্রবার সকালে লালবাগ থানার বড়ঘাট মসজিদ এলাকার কাশ্মীরি গলির একটি বাসায় গ্রেফতারকৃত  জিয়াউর ও মিতুর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী অভিযান চালিয়ে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ইয়াসিন আলী ও দারুল ইহসান ইউনিভার্সিটির পরিচালক বুলবুল আহমেদ বিপুকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় ওই বাসা থেকে দামি ল্যাপটপ, ডেক্সটপ, প্রিন্টারসহ বিভিন্ন ইউনিভার্সিটির ব্ল্যাংক মার্কশিট ও সার্টিফিকেট জব্দ করা হয়।অনলাইন ভেরিফিকেশন করে সার্টিফিকেট বিক্রির করে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া এসব প্রতারকদের সঙ্গে সরাসরি জড়িত এমন বিশ্ববিদ্যালয় ও বোর্ডের বেশকিছু দায়িত্বশীল ব্যক্তির নাম পাওয়া গেছে।গ্রেপ্তারকৃত নুরুন্নাহার মিতু ছাড়া অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলার রেকর্ড পাওয়া গেছে জানিয়েছেন মশিউর রহমান বলেন, প্রতারকদের সঙ্গে সরাসরি জড়িত বাকিদের গ্রেফতারের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।    ...