NAVIGATION MENU

সুকুমার সরকার

সুকুমার সরকার
Aug 29, 2019

অপরাধ

গুলিযুদ্ধে ৩ অস্ত্র ও মাদক কারবারি নিহত

গুলিযুদ্ধে ৩ অস্ত্র ও মাদক কারবারি নিহত

চট্টগ্রাম, গাজীপুর ও কুমিল্লায় গুলিযুদ্ধে’তিনজন নিহত হয়েছে। বুধবার রাতে র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব) ও ডিবি পুলিশের সঙ্গে এসব গুলিযুদ্ধ ঘটে। চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে র্যাবের সঙ্গে ‘গুলিযুদ্ধে’ একজন  নিহত হয়।নিহতের বয়স আনুমানিক ৪০ বছর। বুধবার রাতে ফটিকছড়ি উপজেলার ভুজপুর থানার কোটাবাড়িয়া গ্রামের শিকদার পাড়ায় গুলিযুদ্ধ ঘটে।র্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক এএসপি মাশকুর রহমান জানান, ফটিকছড়ি উপজেলায় অস্ত্র বেচাকেনার’ খবর পেয়ে র্যাবের একটি টহল দল সেদিকে যায়।এ সময় রাস্তার পাশ থেকে সন্ত্রাসীরা টহল দলের গাড়ির দিকে গুলি করে।্যাবের সদস্যরাও পাল্টা গুলি চালায়। দুইপক্ষের গুলি বিনিমযের পর সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। মাশকুর জানান, এরপর ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে একজনের মরদেহ উদ্ধারের পাশাপাশি একটি একে-২২ রাইফেল এবং ৬৩ রাউন্ড গুলি পাওয়া যায়। এদিকে গাজীপুর জেলার মহানগরীর সালনায় র্যাবের সঙ্গে গুলিযুদ্ধে’ সুজন মিয়া (৪০) নামে এক মাদক কারবারি নিহত হয়েছে।নিহত সুজন অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ী। সুজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ১৩টি মামলা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ১১টি মাদক, একটি অস্ত্র ও অপরটি হত্যা মামলা।বুধবার রাত ২টার দিকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সালনার মোল্লাপাড়া এলাকায় এ গুলিযুদ্ধ ঘটে। র্যাব-১ এর গাজীপুরের পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, একটি টহল দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে, মোল্লাপাড়া এলাকায় কয়েকজন অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ী অবস্থান করছে।রাত ১টা ৫০ মিনিটের দিকে ওই টহল দল সেখানে অভিযানে যায়। র্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ীরা র্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে।এ সময় র্যাব সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছুড়লে সুজন গুলিবিদ্ধ হয় এবং অন্যরা পালিয়ে যায়। মামুন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে দুইটি শটগান, দুইটি ওয়ান শুটারগান, ১হাজার ২শ’ পিস ইয়াবা ও ৯ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।বন্দুকযুদ্ধের সময় র্যাবের এক সদস্যও আহত হয়েছেন। কুমিল্লা জেলায় ডিবি পুলিশের সঙ্গে  ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাসেল নামে এক মাদক  কারবারি  নিহত হয়েছে। বুধবার রাতে জেলার সদর উপজেলার গোমতী নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধ সংলগ্ন শ্রীপুর এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধ ঘটে।জেলা ডিবি পুলিশের ওসি মো. মাঈন উদ্দিন খান জানান, শ্রীপুর এলাকায় কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী মাদক ভাগাভাগি করছে এমন খবর পেয়ে রাত দেড়টার দিকে ঘটনাস্থলে যায় জেলা ডিবি পুলিশ।পুলিশের উপস্থিতি...


Aug 29, 2019

অপরাধ

জবাই করে ইমাম বন্ধুর ঘাড় থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করলেন আরেক ইমাম

জবাই করে ইমাম বন্ধুর ঘাড় থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করলেন আরেক ইমাম

পাওনা টাকা নিয়ে কলহের জের ধরে ঢাকার অদূরে সোনারগাঁও মসজিদের ইমাম দিদারুল ইসলামের ঘাড় থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছেন তারই বন্ধু আরেকটি মসজিদের ইমাম ওয়াহিদুজ্জামান। ঘটনার ৫ দিন পর ঘাতক ওয়াহিদুজ্জামান পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে।তাকে বুধবার মাদারীপুর জেলার শিবচর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। ওয়াহিদুজ্জামান শিবচরের একটি মসজিদের ইমাম। তার বাড়ি নড়াইল জেলার কলাবাড়িয়া পশ্চিমপাড়া গ্রামে।সোনারগাও  উপজেলার মল্লিকপাড়া গ্রামের নারায়ণদিয়া বায়তুল জালাল জামে মসজিদের ইমাম ছিলেন দিদারুল ইসলাম। তার বাড়ি নড়াইলের কালিয়া উপজেলার রাজাপুর গ্রামে।পিতার নাম আফতাব ফরাজী। দিদারুল গত ২৬ জুলাই মল্লিকপাড়া মসজিদে ইমাম হিসেবে নিয়োগ পান। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওয়াহিদ তার বন্ধু দিদারুলের কাছ থেকে টাকা ধার নেন।দীর্ঘদিন ধরেই ওই টাকা ফেরত দিতে তাগাদা দিচ্ছিলেন দিদারুল। নানা টালবাহানা শুরু করেন ওয়াহিদ। পাওনা টাকা যাতে দিতে না হয় সে লক্ষ্যে হত্যার পরিকল্পনাও করেন তিনি।সূত্র জানায়, হত্যার লক্ষ্যে ২১ আগস্ট রাতে মল্লিকপাড়ায় আসেন ওয়াহিদ। এ সময় তিনি তার হাতে করে দুটি কোমল পানীয়র (কোক) বোতল নিয়ে আসেন।এর একটিতে ঘুমের ওষুধ মেশানো ছিল। দিদারুল একপর্যায়ে কোক খেয়ে অচেতন হয়ে পড়লে কোরবানির পশু জবাই করার ছুরি দিয়ে তাকে জবাই করেন ওয়াহিদ। সূত্র জানায়, দিদারুলকে হত্যার পর তার ঘাড় মাথা থেকে আলাদা করেন ওয়াহিদ।পরে ঘাতক তার রক্তমাখা লুঙ্গি ও কোকের বোতল দুটি মসজিদের পাশের ডোবায় ফেলে পালিয়ে যান। হত্যার পরের দিন ২৩ আগস্ট দিদারুল ইসলামের ভাই মিজানুর রহমান বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় একটি হত্যা  মামলা করেন।ঘাতক ওয়াহিদুজ্জামান জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার দায় স্বীকার করে। তার কথামতো গতকাল দুপুরে মল্লিকপাড়া মসজিদের পাশের ডোবা থেকে রক্তমাখা লুঙ্গি ও কোকের দুটি বোতল উদ্ধার করা হয়।...


Aug 29, 2019

বিশ্ব সংবাদ

প্রবাস প্রজন্মে লাল-সবুজের পতাকা জাগ্রত রাখার সংকল্পে আটলান্টিক সিটিতে বাংলাদেশ মেলা

প্রবাস প্রজন্মে লাল-সবুজের পতাকা জাগ্রত রাখার সংকল্পে আটলান্টিক সিটিতে বাংলাদেশ মেলা

লাল-সবুজের আদলে ক্যাসিনো সিটি খ্যাত আটলান্টিক সিটির   সেন্ড ক্যাসল স্টেডিয়ামটি পরিণত হলো একখন্ড বাংলাদেশে।ধ্বণিত হলো হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের স্বপ্নের সোনার বাংলা রচনায় সম্মিলিত সহযোগিতা অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার। নিজ নিজ অবস্থান থেকে প্রিয় মাতৃভুমির সার্বিক কল্যাণে কাজ  করার সংকল্পও উচ্চারিত হলো সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত অবধি।অভাবনীয় এ পরিবেশ তৈরী হয়  বঙ্গোপসাগরের বুক চিরে জেগে ওঠা নতুন  ভূখন্ডের মতো নিউজার্সি অঙ্গরাজ্যের আটলান্টিক মহাসাগর বিধৌত আটলান্টিক সিটির বুকে ২৭ আগস্ট, মংগলবার রাতে।বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আটলান্টিক কাউন্টির উদ্যোগে স্যান্ডক্যাসল স্টেডিয়ামের সুবিশাল প্রান্তরে অনুষ্ঠিত এ মেলার উদ্বোধন করেন উত্তর আমেরিকায় সমাজসেবামূলক প্রতিষ্ঠান ‘আবদুল কাদের মিয়া ফাউন্ডেশনর প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান হাজী আবদুল কাদের মিয়া। তিনি ছিলেন প্রধান অতিথি।আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন আটলান্টিক সিটি নিয়ে গঠিত কংগ্রেসনাল ডিস্ট্রিক্ট-২ এর কংগ্রেসম্যান (ডেমক্র্যাট) জেফ ভ্যান ড্রিউ।  আরো ছিলেন স্টেট এসেম্বলী প্রার্থী  ফিল গুয়েনথার, জন রিসলি, আটলান্টিক  কাউন্টির নির্বাহী পদে প্রার্থী  সুসান এম করনগাট, ফ্রি হোল্ডার প্রার্থী  সুমন মজুমদার, চতুর্থ ওয়ার্ড   থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী  মো: হোসাইন মোর্শেদ, পঞ্চম ওয়ার্ড  থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী  আনজুম জিয়া, ষষ্ঠ ওয়ার্ড   থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী  সোহেল আহমদ, আটলান্টিক সিটি  স্কুল বোর্ড নির্বাচনে প্রার্থী  সুব্রত চৌধুরী প্রমুখ।আটলান্টিক -ক্রেস্ট সম্মাননা ক্রেস্ট হাতে গুণিজনেরা। ছবি-এনআরবি নিউজ ।শুভেচ্ছা বক্তব্যে আব্দুল কাদের মিয়া বলেন, বাংলাদেশী বংশোদ্ভত প্রজন্মের মধ্যে বিশেষ কৃতিত্ব প্রদর্শনকারি ছাত্র-ছাত্রীরা সংবধিত হবার ঘটনাটি বিরল।আর এর মধ্যদিয়েই অন্যদেরকে উৎসাহিত করা সম্ভব হয়-যাতে তারাও সামনের বছর ভালো রেজাল্ট দেখাতে সক্ষম হয়।কাদের মিয়া উল্লেখ করেন, বহুজাতিক এ সমাজে বাঙালিদের ঐক্যের বিকল্প নেই। ঐক্যের এই ধারা প্রবাহিত করতে হবে মূলধারায় নিজেদের অবস্থান সংহত করতে। আর এক্ষেত্রে আটলান্টিক কাউন্টি ইতিমধ্যে অনেকটা এগিয়ে রয়েছে। এজন্যে আমি সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।মেলায় নিউজার্সির বিভিন্ন শহরে বসবাসকারী প্রবাসীদের সব পথ এসে যেনো মিশেছিল স্টেডিয়ামের প্রান্তরে। বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা হাতে, কপালে জাতীয় পতাকার ব্যান্ড বেঁধে, জাতীয় পতাকার রংয়ের পোশাক পরে ছোট্টমনিদের আগমনের ঘটনাটি সকলকে অভিভত করেছে। মা-বাবা-অভিভাবকের জন্মভূমির প্রতি তাদের উৎসাহ, উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। সারাক্ষণ নেচে-গেয়ে তারা মেলা প্রাঙ্গণকে মুখরিত করে...


Aug 29, 2019

জাতীয়

সাধারণ রোগীদের মতোই ১০ টাকার টিকিট কেটে চিকিৎসা নিলেন প্রধানমন্ত্রী

সাধারণ রোগীদের মতোই ১০ টাকার টিকিট কেটে চিকিৎসা নিলেন প্রধানমন্ত্রী

সবাইকে অবাক করে দিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কেটে চোখের ডাক্তার দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সাধারণ রোগীদের মতোই সরকারি নির্ধারিত ১০ টাকার টিকিট কেটে চিকিৎসা নিলেন তিনি।বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানী ঢাকার শের-ই-বাংলা নগরের জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চোখ দেখিয়েছেন তিনি।প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব এম এম ইমরুল  কায়েস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক প্রধানমন্ত্রীর চোখ দেখেন এবং চিকিৎসা দেন। চোখ দেখানোর পর প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালের বর্তমান কর্মকাণ্ড সম্পর্কে খোঁজ-খবর নেন। তিনি চিকিৎসক ও নার্সদের সেবায় সন্তোষ প্রকাশ করেন।আরো পড়ুন : খোকার মরদেহ দেশে আনতে সরকার সহযোগিতা করছেঃ তথ্যমন্ত্রীপ্রধানমন্ত্রী এর আগেও বেশ কয়েকটি সরকারি হাসপাতালে সাধারণ রোগীদের মতো লাইনে দাঁড়িয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। গত এপ্রিলে চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটেই একইভাবে চোখের চিকিৎসা নিয়েছিলেন তিনি।এছাড়া গাজীপুরে মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে হাসপাতালে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কেটে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করান শেখ হাসিনা।...


Aug 16, 2019

জাতীয়

ঈদ ছুটির পরও ভারতমুখী বাংলাদেশিদের ঢল অব্যাহত

ঈদ ছুটির পরও ভারতমুখী বাংলাদেশিদের ঢল অব্যাহত

বাংলাদেশিরা এখন ছুটি-ছাটা পেলেই ভারত ভ্রমণে বেড়িয়ে পড়েন। কেননা স্বল্প খরচে বিদেশ ভ্রমণে এমন সুবিধা আর কোথাও মেলে না। অবশ্য বাংলাদেশিদের সিংহভাগ মানুষ আপন শহর হিসেবে  কলকাতায় ভ্রমণকে অগ্রাধিকার দেন। কলকাতাকে তাঁরা বিদেশ মনে করেন না।  চারশো বছরের পুরানো  হেরিটেজ শহর কলকাতার অনেক কিছু দেখার আছে। তাইতো ইদুল ফিতর বা  কুরবানি ইদ এলে সপ্তাহ খানেক লম্বা ছুটিতে ভ্রমণ পিপাসুরা কলকাতা বা আগরতলা ছোটেন।এবার ইদে তিনদিন তার আগে সাপ্তাহিক ছুটি দুদিন, ইদ ছুটি শেষে ফের সাপ্তাহিক ছুটি দুদিন, মাঝে ১৪ আগস্ট খোলা বাদে পরের দিন ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ছুটির পরেই দুদিন আবার সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে ১৭ আগস্ট পর্যন্ত টানা নয় দিনের ছুটি পেয়ে ভারতমুখী বাংলাদেশিদের ঢল নেমে যায় পাসপোর্ট যাত্রীদের।কেউ ভ্রমণে, কেউ আত্মীয় স্বজনের সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ আবার কেউ কেউ ছোট-খাট   চিকিৎসাটাও সেরে নিলেন এই ফাকে । ভারতমুখী যাত্রীরা বলছেন, জরুরি প্রয়োজন থাকলেও এতদিন ছুটি না মেলায় তারা যেতে পারেননি।এখন ইদ, শোক দিবস ও সাপ্তাহিক ছুটিসহ  নয় দিনের লম্বা সময় পাওয়ায় পরিবার নিয়ে তারা ভারতে এসেছেন। অর্থাৎ রথ দেখা ও কলা বেচা আর কি। এমনই এক পাসপোর্ট যাত্রী মস্তফা  জানান, তিনি  বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন।বেশ কিছুদিন ধরে ভারতে যেতে আগ্রহী। এবার ইদে কয়েকদিনের ছুটি পাওয়ায় এখন ভারতে বেড়াতে এসেছেন। কলকাতায় আসা এক যাত্রী বাবুল রায়  বলেন, আমি একটি কলেজে শিক্ষকতা করি।পরিবারের কয়েকজনকে ভাল ডাক্তার দেখানো দরকার। এতদিন ছুটি না পাওয়ায় যেতে পারিনি। এখন লম্বা ছুটি পেয়ে কলকাতা এলাম ।বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস ইমিগ্রেশনের রাজস্ব কর্মকর্তা মৃনাল কান্তি সরকার বলেন, ইদের ছুটির মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকলেও  কাস্টমস ইমিগ্রেশনের সব শাখা খোলা রয়েছে। অন্য সময়ের চেয়ে এখন যাত্রীদের যাতায়াত  বেশি।তারা যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে যাতায়াত করতে পারেন এজন্য প্রয়োজনীয় জনবলও রয়েছে।  বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের (ওসি) আবুল বাশার বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় এ পথে বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রতিদিন সাধারণত ৪/৫ হাজার পাসপোর্ট যাত্রী ভারতে যান।প্রতিদিন ঢাকা থেকে শতাধিক বাস ছাড়াও এখন প্রতিদিন ঢাকা থেকে নয়’শ যাত্রী নিয়ে ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ সকালেই বেনাপোল সীমান্তে আসে। ইদের আগের...


Aug 15, 2019

সম্পাদকীয়

খালেদা জিয়ার পাঁচ জন্মদিন ঘিরে যতো বিতর্ক

খালেদা জিয়ার পাঁচ জন্মদিন ঘিরে যতো বিতর্ক

মানুষ বড় হলে মন ও মানসিকতার উন্নতি হয়- এটাই আমরা চিরকাল দেখে আসছি। কিন্তু ব্যতিক্রম দেখা গেলো কেবল বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জন্মদিন ঘিরে।আসল জন্মদিনে কবে, সেটা নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক আছে। তিনি যে বাঙ্গালির শোক দিবস হেয় করতেই এই বিতর্ক সৃষ্টি করতে চেয়েছেন তা ঢের বোঝা  যায়। নইলে কেন তিনি এই দিনটিকে তার  জন্মদিন পালন করছেন।  বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা এবং অনলাইনে তার  অন্তত পাঁচটি জন্মদিনের উল্লেখ পাওয়া যায়।প্রতিটি দাবির পক্ষেই দলিলও রয়েছে। ১৯৯১ সালের ২০ মার্চ তারিখে দৈনিক বাংলা পত্রিকায় সরকারি বার্তা সংস্থা- বাসস থেকে পাঠানো তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জীবনীতে তার জন্মদিন উল্লেখ করা হয় ১৯৪৫ সালের ১৯ আগস্ট।ম্যাট্রিক পরীক্ষার মার্কশিট অনুসারে বেগম খালেদা জিয়ার জন্মদিন ১৯৪৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর। বিয়ের কাবিননামা অনুসারে তাঁর জন্মদিন ১৯৪৪ সালের ৯ আগস্ট।পাসপোর্ট অনুসারে তাঁর জন্মদিন ১৯৪৬ সালের ৫ আগস্ট। ২০০০ সালের ভোটারের তথ্য বিবরণী ফরমে খালেদা জিয়ার জন্মদিন উল্লেখ করা হয় ১৯৪৬ সালের ১৫ আগস্ট।১৯৯১ সালে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়ার পর দৈনিক বাংলায় বেগম খালেদা জিয়ার জন্মদিন হিসেবে ১৯৪৫ সালের ১৯ আগস্ট উল্লেখ করা হলেও সেই দৈনিক বাংলাতেই ১৯৯৩ সালে প্রথম তাঁর জন্মদিন ১৫ আগস্ট হিসেবে উল্লেখ করা হয়।সে বছর থেকেই ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালন শুরু করেন তিনি। তবে প্রথমে তা ছিল নিছক ঘরোয়া। বিরোধী দলে যাওয়ার পর ১৯৯৬ সাল থেকে ১৫ আগস্ট ঘটা করে জন্মদিন উদযাপন শুরু করেন বেগম খালেদা জিয়া।তারপর প্রতিবছর ১৫ আগস্ট প্রথম প্রহরে রীতিমত কেক কেটে আয়োজন করে পালিত হয়ে আসছে বেগম জিয়ার জন্মদিন।১৫ আগস্ট কেউ জন্ম নিতে পারবেন না, কারো জন্মদিন হতে পারবে না;এমন কোনো কথা নেই। অনেকেরই জন্মদিন নিয়ে নানা বিভ্রান্তি আছে।বিশেষ করে প্রকৃত জন্মদিনের সাথে সার্টিফিকেটের জন্মদিনের অমিল আছে, এমন লোকের সংখ্যা অগনিত।যেমন কারো  জন্ম হয়েছে ১৯৭৫ সালের ১১ আগস্ট। কিন্তু কেন জানিসার্টিফিকেটে তার জন্মদিন ১৯৭৭ সালের ৩১ মার্চ লেখা হয়েছে। এটা ধরে নেয়া যায়, চাকরি-বাকরির সুবিধার জন্যই তিনি বয়স কমিয়েছেন। অবশ্যই এটা অপরাধ।    কিন্তু একজন বিখ্যাত ব্যক্তি- বাঙালির জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের...


Aug 15, 2019

জাতীয়,সম্পাদকীয়

আজ শোকাবহ ১৫ আগস্ট

আজ শোকাবহ ১৫ আগস্ট

আজ বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) জাতীয় শোক দিবস। দিবসটি বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী।এদিন কিছু বিপথগামী সেনা সদস্য বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি ও তাঁর পরিবারের সদসদের হত্যা করে দেশকে পাকিস্তানের সঙ্গে কনফেডারেশন করতে চেয়েছিল। সঙ্গে ছিল বেঈমান খন্দকার মোশতাক আহমেদ ।১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঢাকার ৩২ নম্বর বাড়িতে  জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। বাংলাদেশে দিনটি পালিত হয় জাতীয় শোক দিবস হিসেবে।বঙ্গবন্ধুকে তার জন্মস্থান গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় দাফন করা হলেও পরিবারের অন্য সদস্যদের ঢাকার বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়। এ কারণে ১৫ আগস্ট সকালে দুই জায়গাতেই  শ্রদ্ধা নিবেদনের কর্মসূচি থাকে।জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানমালা ঘিরে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘর এবং বনানী কবরস্থানসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ‘নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা’ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আধুনিক বাঙালি জাতীয়তাবাদের জন্মদাতা। উপমহাদেশে রাজনীতি ছিল অভিজাত ও বিত্তবানদের অধিকারে। বঙ্গবন্ধুই এ দেশে রাজনীতিতে সাধারণ মানুষের প্রতিনিধিত্ব প্রতিষ্ঠা করেছেন।বৃহস্পতিবার টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতির পিতার ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে জাতির পিতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাতে এবং সেখানে অন্যান্য কর্মসূচিতে যোগ দিতে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া যাবেন তিনি।প্রধানমন্ত্রী জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ শেষে বিকেলে ঢাকায় ফিরবেন। প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার সকালে বিমানবাহিনীর একটি হেলিকপ্টারে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর পৈতৃক বাড়ির উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।এছাড়া প্রধানমন্ত্রী জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচির অংশ হিসেবে এদিন  সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। এরপর তিনি বনানী কবরস্থানে ১৫ আগস্টের হত্যাযজ্ঞে নিহত শহীদদের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং ফাতেহা ও মোনাজাতে শরিক হবেন।প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া হেলিপ্যাডে পৌঁছে সরাসরি বঙ্গবন্ধুর মাজারে গিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। পুষ্পস্তবক অর্পণের পর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু এবং ১৫ আগস্টের হত্যাযজ্ঞে নিহত অন্যান্য শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে ফাতেহা ও মোনাজাতে অংশ নেবেন। অনুষ্ঠানে এর আগে তিন বাহিনীর একটি চৌকশ  দল প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার প্রদান করবে।প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিসভার সদস্য, দলের নেতাকর্মীরা মাজার প্রাঙ্গণে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসন আয়োজিত মিলাদ ও...


Aug 05, 2019

সম্পাদকীয়

রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়ার বিরুদ্ধে মহল বিশেষের অপপ্রচার

রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়ার বিরুদ্ধে মহল বিশেষের অপপ্রচার

২০১৭ সালে মায়ানমারে সেনা অভিযানের মুখে এ পর্যন্ত সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলার নানাস্থানে অবস্থান করছে। এরআগে এসেছে আরও চার লাখ। মোট ১১ লাখ রোহিঙ্গা নিয়ে বাংলাদেশ কিছুটা হলেও বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছে।এই বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা কক্সবাজারের টেকনাফসহ আরও ২/৩ স্থানে থাকায় পরিবেশসহ নানা ধরনের সমস্যা তৈরি হয়েছে। এরমধ্যে ভাবতে হবে কক্সবাজার দেশের প্রধান সমুদ্র সৈকত তথা পর্যটন কেন্দ্র।বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে পর্যটকরা বিশ্বের বৃহত্তম এই সি বিচে বেড়াতে আসেন। বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের দিকে তাকিয়ে সেখানকার পরিবেশের দিকে নজর রাখা সরকারের অন্যতম দায়িত্ব।বিষয়টি অনুধাবন করেই সরকার রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে সরিয়ে নিতে উদ্যোগী হয়েছেন। কিন্তু বাদ সেধেছে একটি মহল। তারা এ নিয়ে কূটচাল শুরু করেছে। তারা নিজেদের হীনস্বার্থে এটা করছে।  সরকার ভাসানচরে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা খরচ করে রোহিঙ্গাদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু স্বার্থান্বেষীদের অপপ্রচারে ফলে রোহিঙ্গারা সেখানে যেতে রাজি হচ্ছে না। তারা নানা টালবাহনা শুরু করেছে।হাতিয়ার চরঈশ্বর ইউনিয়নের ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের আবাসন এবং কর্মসংস্থানের লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু হয় ২০১৭ সালের নভেম্বরে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এই আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা। এরইমধ্যে ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। প্রায় ১ লাখ ২৩ হাজার রোহিঙ্গাকে সেখানে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা থাকলেও তা থমকে আছে রোহিঙ্গাদের আপত্তির মুখে।আরো পড়ুন:রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে মধ্যস্থতার প্রস্তাব জাপানেরকিছুদিন আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দাতা সংস্থার কিছু কর্তা ব্যক্তি রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে না যেতে ভুয়া ভয়-ভীতি ও অজুহাত দেখিয়ে ইন্ধন যোগাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, দাতা সংস্থার কর্তারা বিদেশি টাকায় কক্সবাজারে হোটেল-মোটেলে আরাম-আয়াশে থাকেন।এরপর রোহিঙ্গাদের খোঁজ-খবর নেন। কিন্তু রোহিঙ্গারা ভাসানচরে গেলে দাতা সংস্থার কর্মকর্তাদের সেখানে উন্নতমানের হোটেল-মোটেলে থাকার সুব্যবস্থা পাবেন না। তাই তারা রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে যেতে নিরুৎসাহিত করছেন। একই কথা জানালেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন। তিনি বলছেন, কিছু বিদেশি দাতা সংস্থা এবং বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে না যেতে উস্কানি দিচ্ছে। তিনি বলেন, তাদের মতে ভাসানচরে যাওয়ার জন্য নদীপথ ছাড়া আর কোন পথ নেই, তাই তারা নিয়মিত যোগাযোগ করতে পারবে না।পর্যাপ্ত যোগাযোগ ব্যবস্থা নেই। কিন্তু পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গারা সেখানে গেলেই...


Aug 01, 2019

জাতীয়,শোকাবহ আগস্ট

বাঙালির শোকের মাস আগস্ট

বাঙালির শোকের মাস আগস্ট

আগস্ট বাঙালির শোকের মাস। কলঙ্কের এ মাসেই জাতি হারিয়েছিল এক বিশাল মহীরুহকে। যার সামনে কোন বাঁধাই দাঁড়াতে পারেনি।তাঁর মহান আত্মত্যাগে ও সুদৃঢ় নেতৃত্বের ফলে  চিরকালের অবহেলিত বাঙালিরা পেয়েছিল একটি স্বাধীন রাষ্ট্র। একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের কারণে বাঙালিরা আজ বিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছে।যা করতে সাহস দেখায়নি বর্বর পাকিস্তানিরা। তাও কিছু ঘৃণিত লোক ইতিহাসের কলঙ্কিত কাণ্ড ঘটায়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নৃশংসভাবে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসের এই মহানায়কের বুকের তাজা রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল বাংলার মাটি।পয়লা আগস্ট। শোকাবহ মাসের প্রথম দিন। এদিন থেকেই মাসজুড়ে জাতি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি শেখ মুজিবুর রহমানকে।বাঙালিরা চরম ঘৃণা, ধিক্কার জানাবে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যাকারী একাত্তরের পরাজিত ঘৃণিত শত্রুদের। এবারও আগস্টের প্রথম প্রহরে বুধবার রাত ১২টা ১ মিনিটে মোমবাতি প্রজ্বালন, আলোর মিছিল, শপথ গ্রহণ ও জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদনের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে শোকের মাসের কর্মসূচি।শাসকদল আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী-অঙ্গ সংগঠনগুলোর মাসব্যাপী কর্মসূচির সূচনাও ঘটেছে প্রথম প্রহরেই। স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগ ধানমণ্ডিতে আলোর মিছিল, শপথ গ্রহণ ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেছে।১৫ আগস্টে জাতির পিতা হত্যার সঙ্গে একাত্তরের পরাজিত শত্রুদের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের মহান আদর্শ এবং চেতনাও।আরো পড়ুন :অধ্যক্ষকে পুকুরে ফেলে দেওয়া কাণ্ডে ধৃত ২২ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধু হত্যার পর ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ দিয়ে এর বিচারের পথ রুদ্ধ করে আরেক কলঙ্কিত ইতিহাস রচনা করেছিল।অবশ্য ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর কলঙ্কিত সেই অধ্যাদেশ বাতিল ও বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার শুরু হয়।দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়ায়  পর ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের চূড়ান্ত রায় এবং পাঁচ ঘাতকের ফাঁসি কার্যকরের মাধ্যমে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করা হয়েছে। জাতি এখনও প্রতীক্ষার প্রহর গুনছে বঙ্গবন্ধুর বাকি ছয় পলাতক খুনির ফাঁসি কার্যকরের।এই আগস্টেই ঘটেছিল জাতির ইতিহাসের আরও একটি বিয়োগান্ত ঘটনা। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে চালানো হয়েছিল ইতিহাসের ভয়াবহতম গ্রেনেড হামলা।ঢাকার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের সমাবেশে চালানো ওই গ্রেনেড হামলা থেকে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা  জখম...


Jul 15, 2019

খেলা,ক্রিকেট

বেশি ৪ মারার সুবাদে বিশ্বকাপ জিতল ইংল্যান্ড

বেশি ৪ মারার সুবাদে বিশ্বকাপ জিতল ইংল্যান্ড

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে রুদ্ধশ্বাস বিশ্বকাপ ফাইনালে জয় তুলে নিল ক্রিকেট প্রতিষ্ঠাতা বৃটেন।তবে ফুটবলে তাও টাইব্রেকারে ড্র হলে সাডেন ডেথের সুযোগ থাকে, ক্রিকেটে কিউয়িরা সেই সুযোগও পেলেন না। ম্যাচ টাই, সুপার ওভারও তাই, শেষ পর্যন্ত ম্যাচে বেশি চার মারার সুবাদে ২০১৯ বিশ্বকাপ জিতল ইংল্যান্ড।আইসিসি’র অদ্ভুত নিয়মে ম্যাচে কিউয়িদের থেকে ৬টা বেশি চার মারার সুবাদে ম্যাচ জেতে ইংল্যান্ড। ম্যাচ শেষে কিউয়িদের হতাশ মুখ বুঝিয়ে দিচ্ছিল পর পর দু’বার ফাইনালে উঠেও হারের যন্ত্রণা। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সব চেয়ে রোমহর্ষক ম্যাচ জিতে ২০১৯ বিশ্বকাপে তাদের নাম লিখে নিল ইংরেজরা।শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনাল ম্যাচটির ভাগ্য নির্ধারিত হয় সুপার ওভারে। সুপার ওভারে খেলতে নেমে দুই দলই নিজেদের ৬ বলে করতে পারে সমান ১৫ রান করে। তবে ইনিংসের ষষ্ঠ বলে মার্টিন গাপটিলকে রানআউট করেই উল্লাসে মেতে ওঠে ইংল্যান্ড।কারণ তাদের জানা ছিলো সুপার ওভারেও টাই হলে শিরোপা উঠবে তাদেরই ঘরে।সুপার ওভারের নিয়ম অনুযায়ী, যদি এ ৬ বলেও ম্যাচের ফলাফল না হয়, তা হলে যে দল বেশি বাউন্ডারি মেরেছে, সেই দলকেই জয়ী বলে ঘোষণা করা হয়। দু’দলের মারা বাউন্ডারির সংখ্যা দিয়েও যদি ম্যাচের নিষ্পত্তি না হয়, সে ক্ষেত্রে কী হবে? তখন দেখা হবে সুপার ওভারের শেষ বলে কোন দল কত রান করেছে। যে দল বেশি রান করেছে, নিয়ম অনুযায়ী সেই দলই জিতবে।ফলে মূল ম্যাচে বেশি বাউন্ডারি হাঁকানোয় প্রথমবারের মতো বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয় ইংল্যান্ড। ম্যাচে আগে ব্যাট করা নিউজিল্যান্ড ১৪টি চার ও ২টি ছক্কায় মোট বাউন্ডারি পায় ১৬টি। অন্যদিকে দ্বিতীয় ইনিংসে ২২টি চারের সঙ্গে ২টি ছয় মারে ইংল্যান্ড।ফলে সুপার ওভারের নিয়মানুযায়ী চ্যাম্পিয়ন হয় ইংল্যান্ড। এতে স্বপ্নের ট্রফি ঘরে তুলল ইংলিশরা। স্বাদ পেল প্রথম শিরোপা জয়ের। আর ক্রিকেটবিশ্বে সূচনা হলো নতুন এক অধ্যায়ের।দেখে নেওয়া যাক ফাইনালে জয়ের কারণগুলি:  সবুজ পিচে টস জিতে আগে ব্যাটিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত কিছুটা হলেও বিপক্ষে গিয়েছে কিউয়িদের। নিকোলস ও উইলিয়ামসন ফিরে যেতে রানের গতি কমে যায়। ফাইনালের মতো ম্যাচে সেই চাপ যে পরের দিকে বিপদ ডেকে আনে তার সেরা উদাহরণ হয়ে রইল এই ম্যাচ।গোটা ম্যাচে প্রচুর ডট বল খেলেন...


Jun 07, 2019

বিশ্ব সংবাদ

হিমালয়ান ভায়াগ্রা খুঁজতে গিয়ে নেপালে মৃত ৮

হিমালয়ান ভায়াগ্রা খুঁজতে গিয়ে নেপালে মৃত ৮

বিরল প্রজাতির হিমালয়ান ভায়াগ্রা খুঁজতে গিয়ে মৃত্যু হল একটি শিশু-সহ আটজনের। ঘটনাটি ঘটেছে নেপালের রাজধানী কাঠমাণ্ডু থেকে ৬০০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমদিকে অবস্থিত ডোলপা জেলায়।ডোলপা-র জেলা প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার জঙ্গলের বিভিন্ন জায়গা থেকে মোট আটটি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সেগুলির ময়নাতদন্তের পর জানা গিয়েছে, এদের মধ্যে পাঁচজন উচ্চতাজনিত শ্বাসকষ্টের জন্য মারা গেছেন। আর দু’জনের মৃত্যু হয়েছে খাদে পড়ে। এছাড়া মায়ের সঙ্গে ভায়াগ্রা খুঁজতে গিয়ে শ্বাসকষ্টজনিত কারণে মারা গিয়েছে একটি শিশুও। এখানে জন্ম নেওয়া ইয়ার্সা গুম্বা নামে পরিচিত দুষ্প্রাপ্য হিমালয়ান ভায়াগ্রাটির বিদেশে প্রচুর চাহিদা আছে। তাই স্থানীয় বাসিন্দারা প্রায়শই উচুঁ জায়গায় থাকা জঙ্গলে ভেষজ এই ছত্রাকটির সন্ধানে ঢুকে পড়েন। প্রাকৃতিক এই ভায়াগ্রাকে সবথেকে দামি জৈব পণ্য বলে দাবি করা হয়েছে মার্কিন জার্নাল ‘ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সেস’-র প্রতিবেদনে। স্থানীয় ভাষায় ‘কিরা জরি’ নামে পরিচিত এই ছত্রাকটি গরম জল, চা, স্যুপ অথবা স্টু-এর সঙ্গে মিশিয়ে খেলে নাকি সারতে পারে ক্যানসার থেকে বন্ধ্যাত্ব। পাশাপাশি এটি যৌবন দীর্ঘস্থায়ী করে বলেও অনেকের বিশ্বাস। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, দুর্লভ ভেষজ গুণসম্পন্ন ছত্রাকটি জন্মায় সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে অন্তত ১১,৫০০ ফুট উঁচু জায়গায় থাকা উপত্যকায়। সেখানকার তাপমাত্রা শূন্য ডিগ্রির নিচে হলেও মাটিতে বরফ থাকে না। সারা পৃথিবীতে পাওয়া যায় শুধু ভারত, চিন ও নেপালে। বিশ্বজুড়ে এই ভায়াগ্রার চাহিদা এতটাই বেশি যে এশিয়া ও আমেরিকায় ১ গ্রাম বিক্রি হয় একশো আমেরিকান ডলারে। এর জন্য গরম পড়লেই বিভিন্ন জায়গার মানুষ এসে ডোলপার পার্বত্য অঞ্চলে দুষ্প্রাপ্য এই ভায়াগ্রার সন্ধান করেন। তাঁদের স্বাস্থ্য পরিষেবা-সহ বিভিন্ন সাহায্য দিতে জেলার বিভিন্ন জায়গায় ৭০টির বেশি ক্যাম্পও খুলেছে প্রশাসন। শুক্রবার জেলা প্রশাসনের এক কর্মকর্তা জানান, বাজারে চড়া দামে বিক্রি করার জন্য স্থানীয়রা হিমালয়ের দুর্গম এলাকায় ঢুকে প্রচুর পরিমাণে কিরা জরি তুলছেন। সেই কারণেই বিপত্তি ঘটেছে। মৃত্যু হয়েছে আটজনের। ...


May 30, 2019

বিশ্ব সংবাদ

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মোদির শপথ, উপস্থিত রাষ্ট্রপতি হামিদ

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মোদির শপথ, উপস্থিত রাষ্ট্রপতি হামিদ

বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় ‘শক্তিমান’ নরেন্দ্র মোদি টানা দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন। এবার লোকসভা নির্বাচনে তাক লাগানো ফলাফল করেছে তাঁর দল বিজেপি৷অন্যান্য দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে৷ জাপান সফরে থাকায় শেখ হাসিনা যেতে না পারলেও, শপথ অনুষ্ঠানে থাকছেন  রাষ্ট্রপতি মহম্মদ আবদুল হামিদ৷ বুধবার দিল্লি গিয়েছেন রাষ্ট্রপতি।ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির সৌজন্য সাক্ষাতের কথা রয়েছে৷ তিনদিনের সফর শেষে আগামী ৩১ মে বিকালে বিশেষ বিমানে বাংলাদেশে ফিরে আসার কথা রয়েছে তাঁর৷তিন দেশ সফর শেষে ৮ জুন বাংলাদেশে ফেরার পথে দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করার কথা রয়েছে হাসিনার৷ এছাড়াও বেশ কয়েকজনের সঙ্গে দেখা করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।বঙ্গোপসাগরের খাঁড়ির সঙ্গে যুক্ত দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাতটি দেশ, বাংলাদেশ, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কা, তাইল্যান্ড, নেপাল, ভুটানের রাষ্ট্রপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এর বাইরে আরও কিছু দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদেরও শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।তবে থাকছেন না পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ পাঁচ বছর আগে ২০১৪ সালের ২৬ মে মোদির প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথগ্রহণের সময়ে রাষ্ট্রপতি ভবনে হাজির ছিলেন তৎকালীন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ।এদিকে নরেন্দ্র মোদী দ্বিতীয় বার প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসার আগেই তাঁর সঙ্গে সরাসরি রাজনৈতিক সংঘাতে নেমে পড়লেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সে কারণেই বুধবার দুপুরে শেষ মুহূর্তে বাতিল করলেন শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যাওয়া।  নরেন্দ্র মোদির শপথ গ্রহণে দেশ-বিদেশের মিলিয়ে প্রায় ৮০০০ অতিথি উপস্থিত থাকবেন এই  অনুষ্ঠানে। রাষ্ট্রপতি ভবনের ইতিহাসে এটাই হবে সবথেকে বড় অনুষ্ঠান।অতিথিদের পরিবেশন করা হবে ‘হাই-টি’ আর নৈশভোজের আতিথ্য করবেন স্বয়ং রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। বিমস্টেকের দেশগুলির প্রতিনধিদের আমন্ত্রণ করা হয়েছে এই অনুষ্ঠানে।বিমস্টেক  দেশগুলিরে নেতাদের মধ্যে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা, মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট ইউ উইন ময়িন্ত, নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি ও ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং।থাইল্যান্ড থেকে থাকবেন বিশেষ প্রতিনিধি গ্রিসাদা বোনার্ক। বিমস্টেক দেশগধলি ছাড়া থাকছে মরিশাস ও কিরগিজস্তান। মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রভিন্দ কুমার জগনথ ও কিরগিজস্তানের প্রেসিডেন্ট সূরনুবে জিনবেকভ থাকবেন। এদের মধ্যে আনেকের সঙ্গে শুক্রবার বৈঠক করবেন মোদী।ভারতের...


May 28, 2019

জাতীয়

সাজাপ্রাপ্তদের নেতৃত্ব থেকে অপসারণ করুন: বিএনপি’কে তথ্যমন্ত্রী

সাজাপ্রাপ্তদের নেতৃত্ব থেকে অপসারণ করুন: বিএনপি’কে তথ্যমন্ত্রী

মধ্যবর্তী নির্বাচন নয়, বিএনপিকে আরেকটি নির্বাচনের জন্য আরও সাড়ে চার বছর অপেক্ষা করতে হবে।একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেভাবে সংবিধান অনুযায়ী হয়েছে, সাড়ে চার বছর পর সংবিধান অনুযায়ীই পরবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।মঙ্গলবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে হাসুমনির পাঠশালা আয়োজিত ‌‌‘ঐতিহাসিক ১৭ মে দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস’ উপলক্ষে এক গোলটেবিল আলোচনায়  তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, একথা বলেন।তথ্যমন্ত্রী বিএনপির মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি নাকচ করে দিয়ে বলেন, বিএনপির ভুল সিদ্ধান্তের কারণে গত দুটি নির্বাচনে জনগণ থেকে তারা দূরে সরে গেছে। তাই সাড়ে ৪ বছর ধরে আপনারা (বিএনপি) দলকে সংগঠিত করুন।হাছান মাহমুদের পরামর্শ- বিএনপিতে যারা দুর্নীতির দায়ে, সন্ত্রাসের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত, তাদের নেতৃত্ব থেকে অপসারণ করুন। দলে নতুন নেতৃত্ব তৈরি করুন, তাহলে দল ঘুরে দাঁড়াবে বিএনপি।হাসুমনির পাঠশালার সভাপতি মারুফা আক্তার পপির সভাপতিত্বে আলোসভায় বক্তব্য বক্তব্য রাখেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান, দৈনিক সমকালের সহযোগী সম্পাদক অজয় দাশ গুপ্ত প্রমুখ।এসএস...


May 27, 2019

জাতীয়

মোদির শপথে থাকবেন রাষ্ট্রপতি হামিদ

মোদির শপথে থাকবেন রাষ্ট্রপতি হামিদ

আগামী ৩০ মে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে তিনি বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন। সোমবার রাতেঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শহিদুল হক গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের ওই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করার কথা ছিল। পরে এতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। তবে মোজাম্মেল হক বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলে থাকছেন। ড.  মোমেন জানান, এবার স্পিকারের পূর্বনির্ধারিত আরেকটি অনুষ্ঠান থাকায় তিনিও দিল্লি যেতে পারবেন না।এদিকে জাপান, সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড-তিন দেশ সফরের কারণে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শপথ অনুষ্ঠানে এবারও যোগ দিতে পারছেন না।তবে ওই তিন দেশ সফর শেষে ৮ জুন ঢাকা ফেরার পথে নয়াদিল্লিতে যাত্রা বিরতি কররেন শেখ হাসিনা। পরিকল্পনা অনুযায়ী হেলসিংকি থেকে ৮ জুন স্থানীয় সময় ভোর ছয়টা নাগাদ নয়াদিল্লি পৌঁছবেন এবং ওই দিন সন্ধ্যা ছয়টার পর ঢাকার উদ্দেশে দিল্লি ত্যাগ করবেন।শেখ হাসিনা এই ১২ ঘণ্টার যাত্রা বিরতিকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎসহ আরো কর্মসূচি থাকতে পারে। এটা কোনো দ্বিপক্ষীয় সফর নয়, এই যাত্রা বিরতিকে দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ‘গুড উইল এক্সচেঞ্জ’ বলে অভিহিত করেছেন উচ্চ পর্যায়ের কূটনৈতিক সূত্র। গত ২৩ মে লোকসভা অভাবনীয় সাফল্যের পর টেলিফোনে নরেন্দ্র মোদিকে উষ্ণ অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তখন দুই নেতা ঢাকা ও দিল্লির সম্পর্ক অনন্য উচ্চতায় নিতে একমত হন।কূটনৈতিক সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর যাত্রা বিরতি, নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাতসহ সংক্ষিপ্ত সফরসূচি নিয়ে প্রস্তুতিমূলক কাজ শুরু করেছেন ঢাকা ও নয়াদিল্লির বিদেশ মন্ত্রকেরআধিকারীকরা।এ সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিক প্রস্তাবও পাঠানো হয়েছে। কাকতালীয়ভাবে ২০১৪ সালেও নরেন্দ্র মোদির শপথের দিন প্রধানমন্ত্রী জাপানে ছিলেন। তাই এবার ফিনল্যান্ড থেকে ফেরার পথে দিল্লিতে ১২ ঘণ্টার যাত্রাবিরতিতে এই পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।...


May 25, 2019

জাতীয়

চট্টগ্রামে ৫০ রোহিঙ্গা আটক

চট্টগ্রামে ৫০ রোহিঙ্গা আটক

বাংলাদেশ পোস্ট অনলাইন ডেস্ক: কক্সবাজার শরণার্থী শিবির থেকে পালিয়ে যাওয়া ৫০ রোহিঙ্গাকে আটক করেছে পুলিশ। পরে তাদের শরণার্থী শিবিরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।চট্টগ্রাম নগরীর কাজীর দেউড়ি, সার্কিট হাউস এবং আউটার স্টেডিয়াম এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। সিএমপির কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন বলেন, রোহিঙ্গারা শরণার্থী শিবির থেকে পালিয়ে নগরীর স্টেডিয়াম এলাকায় অবস্থান নেয়।তারা দিনে ওই এলাকায় ভিক্ষা করে বেড়ায়। স্থানীয়দের অভিযোগ, এসব রোহিঙ্গা বিভিন্ন রেস্টুরেন্ট, শিশুপার্ক এবং পথচারীদের ভিক্ষা দেওর জন্য টানাটানি করে।  অভিযানে ৫৪ জনকে আটক করা হয়।তাদের মধ্য থেকে যাছাই-বাছাই করে ৫০ জনকে শরণার্থী শিবিরে ফেরত পাঠানো হয়েছে। কক্সবাজারের ৩১টি ক্যাম্পে নতুন ও পুরনো মিলিয়ে বাস্তুচ্যুত প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা নাগরিককে নির্বিঘ্নে রাখতে সেনাবাহিনী ও স্থানীয় বেসামরিক প্রশাসন চেষ্টা চালাচ্ছে। দুর্যোগ মৌসুম শুরুর আগমুহূর্তে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায়ও কাজ করছে প্রশাসন।...


May 25, 2019

বিশ্ব সংবাদ

এবার ভূমধ্যসাগর থেকে ১৪ বাংলাদেশি উদ্ধার

এবার ভূমধ্যসাগর থেকে ১৪ বাংলাদেশি উদ্ধার

বাংলাদেশ পোস্ট অনলাইন ডেস্ক: ভূমধ্যসাগরের লিবিয়া উপকূল থেকে শুক্রবার ফের ১৪ বাংলাদেশিসহ ২৯০ অভিবাসীকে উদ্ধার করেছে দেশটির নৌবাহিনী।এরআগে গত ৯ মে গভীর রাতে লিবিয়ার উপকূল থেকে ৭৫ জন অভিবাসী একটি নৌকায় করে ইতালির উদ্দেশে পাড়ি দেওয়ার সময় গভীর সাগরে সেটি ডুবে যায়।এতে ৬৫ জন অভিবাসী প্রাণ হারান। এদের মধ্যে ৩৭ জন বাংলাদেশি। ভূমধ্যসাগরের তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকাডুবিতে বরাত জোরে বেঁচে যাওয়া ১৫ বাংলাদেশি ২১ মে দেশে ফেরেন।শুক্রবার ইউরোপগামী তিনটি নৌকা থেকে ২৯০ জনকে উদ্ধার করা হয়। লিবিয়ার নৌবাহিনী শুক্রবার বিবৃতিতে এ তথ্য  জানায়। জার্মানির একটি দাতব্য সংস্থা সাগরে তিনটি নৌকা অকেজো হয়ে পড়ার খবর জানায় লিবিয়ার নৌবাহিনীকে।একই দিন লিবিয়ার কোস্ট গার্ড একটি রাবারের নৌকা ডুবে যাওয়ার খবর পায়। শুক্রবার দেশটির নৌবাহিনীর ফেসবুক পেজে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়, নৌকাটিতে ৮৭ জন ছিলেন।এদের মধ্যে ছয়জন মহিলা ও এক শিশু। এর আগে কোস্ট গার্ড আরও দুটি রাবারের নৌকা থেকে ২০৩ জনকে উদ্ধার করে বলে পৃথক বিবৃতিতে জানানো হয়।বিবৃতিতে আরও বলা হয়, তিনটি নৌকায় থাকা বেশিরভাগ যাত্রীই আরব, বাংলাদেশ  ও আফ্রিকার নাগরিক। তাদের উদ্ধারের পর মানবিক ও চিকিৎসা সহায়তা দিয়ে লিবিয়ার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।...


May 24, 2019

জাতীয়

জাতির পিতার সমাধিতে হাবিবুর রহমানের শ্রদ্ধা

জাতির পিতার সমাধিতে হাবিবুর রহমানের শ্রদ্ধা

ঢাকা রেঞ্জের নব নিযুক্ত ডিআইজি হাবিবুর রহমান শুক্রবার গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেনএদিন দুপুরে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণের পর তিনি ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে করেন।এ সময় তাঁর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকার পুলিশ সুপার শাহ মিজান মো. সফিউর রহমান, গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার মুহাম্মদ সাঈদুর রহমান খান,নড়াইলের পুলিশ সুপার জসিমুদ্দিন, শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন,গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান,গোপালগঞ্জের পৌর মেয়র কাজী লিয়াকত আলী, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান সোলায়মান বিশ্বাস, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সরদার, টুঙ্গিপাড়া পৌর মেয়র শেখ আহম্মেদ হোসেন মির্জা প্রমুখ।...


May 24, 2019

জাতীয়

কিশোর বয়সেই জড়াল পাপকাণ্ডে

কিশোর বয়সেই জড়াল পাপকাণ্ডে

যে বয়সে ওদের পড়াশোনায় মনোনিবেশ করার কথা। তা না করে অগর্হিত কাজে জড়াল দুই কিশোর।দুই কিশোরের বিরুদ্ধে এক সমবয়সীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল। এ কাণ্ড ফরিদপুর জেলার সালথা থানায়। দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ এবং ধর্ষণের চিত্র মোবাইলে ধারণ করে ফেসবুকে প্রচার করে ওই দুই কিশোর।পরে সালথা থানা পুলিশ এ অভিযোগে শাকিল নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে। উপজেলার উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রীকে যুগীকান্দা লক্ষনদিয়া গ্রামের শাকিল ও তার বন্ধু জাবের মাতুব্বর ধর্ষণ করে।তারা ধর্ষণের চিত্র মোবাইলে ভিডিও করে। ধর্ষণকাণ্ড কাউকে জানালে ওই মেয়েসহ তার মা বাবা ও পরিবারের সবাইকে খুন করে ফেলবে বলে ধর্ষণকারীরা হুমকি ও দেয়। লোকলজ্জা ও প্রাণের ভয়ে মেয়েটি কাউকে এ কথা না বললেও ধর্ষক দুজন পরবর্তীতে সে ভিডিও নিজেরা ফেসবুকে প্রচার করে।ফেসবুকে ভিডিওটি ভাইরাল হলে বিষয়টি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্ঠি করে। পরে বাধ্য হয়ে মেয়েটি তার অভিভাবককে ঘটনাটি জানায়। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর অভিভাবক এলাকার সমাজপতিদের নিকট বিচারের দাবি জানালেও কোন বিচার পায়নি।ভুক্তভোগী মেয়েটির ভাই বলেন, গত ৫ এপ্রিল রাত নয়টার দিকে তার বোন প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরে গেলে শাকিল ও জাবের তার মুখ চেপে ধরে বাড়ির পাশে বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে।এ ঘটনায় মেয়েটির ভাই বাদী হয়ে সালথা থানায় মামলা দায়ের করে। সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঘটনার মূল অপরাধী শাকিলকে গ্রেফতার করেছি। জাবেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।...


May 23, 2019

জাতীয়

ফের সরকার গড়ছেন মোদীই

ফের সরকার গড়ছেন মোদীই

ঢাকা: ভারতের লোকসভা নির্বাচনে বুথ ফেরত জরিপ মোটামুটি সত্যি হতে চলেছে। এবারও সরকার গড়তে চলেছে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট।  ভোট গণনার দু’ঘণ্টা পার না হতেই দেখা যাচ্ছে  দেশটির ৫৪২টি আসনের মধ্যে বিজেপি ৩৩৩টি আসনে এগিয়ে রয়েছে।আর কংগ্রেস ৯৯ আসনে এগিয়ে আছে। তৃণমূল ২৩, বাম ৪ এবং ৭৯ আসনে এগিয়ে আছে। অবশ্য বিজেপি বড় ব্যবধানে অন্যান্য দল থেকে এগিয়ে থাকলেও আগের বারের চেয়ে ৩৬টি আসনে তারা পিছিয়ে।ভারতের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের সপ্তম শুরু হয় ১১ এপ্রিল ও শেষ দফার ভোট গ্রহণ করা হয় ১৯ মে।ভারতের সবচেয়ে বড় রাজ্য উত্তর প্রদেশের ৮০ আসনের মধ্যে ৭৮টি আসনের মধ্যে  বিজেপি ও তার জোটসঙ্গীরা ৫৭টি আসনে এগিয়ে। এ রাজ্যে দীর্ঘদিনের শত্রুতা ভুলে জোট করেছিল বহুজসন সমাজ পার্টি ও সমাজাবাদী পার্টি। ভোট গণনার চলমান প্রবণতা বলছে, এ জোটের ফল ভালো হয়নি।পশ্চিমবঙ্গে ৪২ আসনের মধ্যে ২৩টিতে রাজ্যের ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস এগিয়ে আছে। গতবার মাত্র দুটি আসন পাওয়া বিজেপি এবার ২৩ আসনে এগিয়ে। এ রাজ্যে ১টি  আসনে এগিয়ে কংগ্রেস।এ দুটো রাজ্য ছাড়া বিজেপি যেসব রাজ্য এগিয়ে আছে-  এর মধ্যে আছে রাজস্থান, কর্ণাটক, বিহার, মধ্যপ্রদেশ, ঝাড়খন্ড, গুজরাট, হরিয়ানা ও মহারাষ্ট্র।নির্বাচনকালীন বুথ ফেরত জরিপগুলো প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নেতৃত্বাধীন জোটের বিজয়ের আভাস দিয়েছিল। গণনা শেষে যে প্রাথমিক ফলাফল ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো দিচ্ছে- সেখানেও ক্ষমতাসীন বিজেপির বিপুল ব্যবধানে এগিয়ে থাকার তথ্য আসছে।ভারতীয় পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভার ৫৪৩টি আসনের মধ্যে ৫৪২টিতে নির্বাচন হয়েছে এবার। সরকার গঠন করার জন্য কোনো দল বা জোটকে ২৭২টি আসন পেতে হবে। এদিকে নরেন্দ্র মোদীর টানা দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের সম্ভাবনায় ভারতের পুঁজিবাজারের সূচক বৃহস্পতিবার ইতিহাসের প্রথমবারের মত ৪০ হাজার পয়েন্টের ঘর অতিক্রম করেছে।১১ এপ্রিল শুরু হয়ে গত ১৯ মে শেষ হয় ভারতে পার্লামেন্ট নির্বাচনের ভোট গ্রহণ। ৯০ কোটি ভোটারের জন্য নয় লাখ কেন্দ্রে মোট সাত পর্বে এই ভোটগ্রহণ চলে।ভারতে সাধারণ নির্বাচনে ভোট গ্রহণের পর সঙ্গে সঙ্গে গণনা হয় না। ব্যালট বাক্স কিংবা ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনগুলো (ইভিএম) কঠোর নিরাপত্তায় সংরক্ষিত থাকে বিভিন্ন রাজ্যের ‘স্ট্রংরুমে।নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় কঠোর নিরাপত্তার...