NAVIGATION MENU

৩ দিনের মধ্যে টিসিবিতে ২৫ টাকা দরে আলু: বাণিজ্যমন্ত্রী


আগামী তিনদিনের মধ্যে টিসিবি ২৫ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি করবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। 

তিনি বলেছেন, বাংলাদেশ কৃষি বিপণন অধিদপ্তর থেকে আলুর তিন স্তরে যে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে, সেটা কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা হবে। আমাদের কাজ হলো ভোক্তাদের স্বার্থ দেখা।

রবিবার (১৮ অক্টোবর) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে কোল্ডস্টোরেজ মালিক, আড়তদার ও পাইকারি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি একথা জানান।

এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কোল্ডস্টোরেজ পর্যায়ে ২৩ টাকা, পাইকারি পর্যায়ে ২৫ টাকা ও খুচরা পর্যায়ে ৩০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে। এ বিষয়টি কৃষি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নয়, কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে বাজার দর মনিটরিং করা, বাজারের হ্রাস বৃদ্ধির কারণ চিহ্নিত করা এবং তা স্থিতিশীল করার জন্য সরকারকে পরামর্শ দেওয়া। তারা এসব বিবেচনা করে একটা পরামর্শ আমাদের কাছে দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের এমন ঘাটতি নেই যে হাই-হুতাশ করতে হবে। কৃষি অধিদপ্তরের হিসাব অনুসারে উৎপাদন ভালো হয়েছে। আলুর একটু চাহিদা বেড়েছে তবে কোনো অবস্থাতেই বিপদজনক পরিস্থিতি না। এজন্য আমি ব্যবসায়ী ও কোল্ডস্টোরেজ মালিকদের বলতে চাই নির্ধারিত দামেই আলু বিক্রি করতে হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আজকে সিদ্ধান্ত নিয়েছি কৃষি বিপণন অধিদপ্তর থেকে যে দামটা দেওয়া হয়েছে সেটা বাস্তবায়ন করবো। এরমধ্যে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের নির্ধারিত দাম নিয়ে বিবেচনার কথা বলেছেন কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি। সে বিষয়ে আমি বলেছি আমরা দুই-একদিনের মধ্যেই কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের সাথে বসবো সেখানে তারা যদি তাদের কোনো যৌক্তিক কিছু দেখাতে পারেন তাহলে তারা সেটা দিতে পারেন ৷ কিন্তু এই মুহূর্তে আমাদের দুইটা জিনিস, প্রথম হলো - আমরা শক্তভাবে যে দামটা দেওয়া হয়েছে সেটা অবিলম্বে কার্যকর করতে চাই এবং দ্বিতীয়ত হলো, বরাবরের মতো আমাদের সংকটকালে টিসিবি নামে। তাই আমরা টিসিবিকে নির্দেশ দেবো দ্রুত বাজার থেকে আলু কিনতে। যাতে আগামী তিনদিনের মধ্যেই টিসিবির মাধ্যমে ২৫ টাকা কেজি দরে আলু সাধারণ ভোক্তারা পায়।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এ বছর আলুর উৎপাদনে দেরি হবে। পাশাপাশি বন্যা স্বাভাবিক শাক-সবজির ওপর প্রভাব ফেলেছে। এর ফলে কিছুটা প্রভাব পড়েছে আলুর ওপরে। শীতকালিন শাক সবজি কিন্তু কিছুদিনের মধ্যে বাজারে আসবে তখন আলুর ওপর চাপ কমবে। তাই কেউ মজুদ বা আটকে রাখলে বিপদে পড়বে।’

বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন - কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) মো. ওবায়দুল আজম, অতিরিক্ত সচিব (আইআইটি) মো. হাফিজুর রহমান, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা, বাংলাদেশ ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশ (টিসিবি) এর চেয়ারম্যান ব্রি.জে মো. আরিফুল হাসান, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান এ এইচ এম আহসান, বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মো. মোস্তাক হোসেন, ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের সদস্য শাহ মো. আবু রায়হান আল-বেরুনি, র্যাব, ডিজিএফআই, এনএসআই-এর প্রতিনিধি, কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশন এবং পাইকারি আলু ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিরা।

এমআইআর/এডিবি